ঢাকা, ২৩ জুন, ২০২১
সর্বশেষ:

পা হারিয়েও মানব সেবা থেমে নেই পুলিশ সদস্য পারভেজের

নিজস্ব প্রতিবেদক

প্রকাশিত: ০০:২৬, ৯ জুন ২০২১  

পা হারিয়েও থেমে নেই পুলিশ সদস্য পারভেজ,

পা হারিয়েও থেমে নেই পুলিশ সদস্য পারভেজ,

পা ছাড়া হাঁটতে কী কষ্ট তা আমি বুঝি। এমন কাউকে দেখলে নিজেকে সামলাতে পারি না। আমার তো একটাই পা। ইচ্ছা হয়, এটা দিয়ে হলেও যেন তার দুঃখ দূর করতে পারি! এক অনলাইন সংবাদ মাধ্যমের সঙ্গে আলাপকালে এসব কথা বলছিলেন বাংলাদেশ পুলিশের অন্যতম মানবিক সদস্য পারভেজ মিয়া। সাহসিকতার জন্য তিনি বাংলাদেশ পুলিশের সর্বোচ্চ পুরস্কার বিপিএম খেতাব পেয়েছেন। 

কৃত্রিম পায়ে অকৃত্রিম প্রেমে যিনি মানবসেবায় সবার আগে ছুটে যান তিনি পারভেজ মিয়া ২০১৭ সালের ৭ জুলাই ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কে কুমিল্লার দাউদকান্দিতে বাসডুবির ভয়াবহ দুর্ঘটনা ঘটে। সেসময় জীবনের ঝুঁকি নিয়ে যাত্রীদের প্রাণ বাঁচাতে ঝাঁপিয়ে পড়েন কনস্টেবল পারভেজ। ২০ জন যাত্রীকে জীবিত উদ্ধার করে সাহসিকতার অনন্য নজির গড়েন তিনি।  

আজীবন মানুষের সেবায় ছুটে চলার ব্রত নিয়েছিলেন পারভেজ। মানুষের জন্য যার এত প্রেম, নিয়তি তাকে এক কঠিন পরীক্ষায় ফেলে। বাসডুবির দুই বছর পর সড়ক দুর্ঘটনায় মারাত্মক আহত হন তিনি। মানবসেবায় সবার আগে ছুটতে চাওয়া মানুষটা হারিয়ে ফেলেন পা। 

পারভেজ পা হারান। তবে প্রেম হারাননি। কৃত্রিম পা নিয়ে মানুষের সেবায় বুকটান করে আছেন জীবনযুদ্ধের ময়দানে। তিনি এখন কাঁচপুর হাইওয়ে থানার হাইওয়ে পুলিশ কমান্ড অ্যান্ড মনিটরিং সেন্টারে (মেঘনা) সিসি ক্যামেরার মনিটরিংয়ের দায়িত্বে। সরকারি দায়িত্বে দেশসেবা করা ছাড়াও ব্যক্তিগত প্রেমে আছেন মানুষের পাশেই। আছেন সেবার ডালি নিয়ে মানবিক কাজে। 

তার সহকর্মীরা জানান, রাস্তায় পরে থাকা অসহায় মানুষের সেবায় কাজ করছেন পারভেজ। পঙ্গু ও শারীরিকভাবে ভারসাম্যহীন অসহায় মানুষের উপকারে আসার সাধ তার সাধ্যের চেয়ে বেশি। আশপাশে বিপদগ্রস্ত কাউকে দেখলে তিনি সবার আগে পাশে দাঁড়ান। 

কনস্টেবল পারভেজ মিয়া বলেন, অসহায় দুঃস্থদের মায়ের রান্না করা খাবার পৌঁছে দিচ্ছি। ভবিষ্যতে এতিমখানা ও বৃদ্ধাশ্রমে খাবার পরিবেশনের ইচ্ছা আছে। খাবার ছাড়াও জামা-কাপড়, কম্বলসহ নানা প্রয়োজনে পারভেজ বাড়িয়ে দেন সাহায্যের হাত। মানবসেবায় বাড়ানো সেই হাতকে সাপোর্ট করে শক্তি যোগায় পরিবারের সদস্য আর কিছু শুভাকাঙ্ক্ষী।  

নিউজওয়ান২৪/এসআর

জাতীয় বিভাগের সর্বাধিক পঠিত