ঢাকা, ০৮ এপ্রিল, ২০২০
সর্বশেষ:
আইইডিসিআর এর করোনা কন্ট্রোল রুম (০১৭০০৭০৫৭৩৭) অথবা হটলাইন নম্বরে (০১৯৩৭১১০০১১, ০১৯৩৭০০০০১১, ০১৯২৭৭১১৭৮৪, ০১৯২৭৭১১৭৮৫, ০১৯৪৪৩৩৩২২২, ০১৫৫০০৬৪৯০১–০৫) যোগাযোগ করা যাবে। এ ছাড়া করোনাসংক্রান্ত তথ্য জানতে বা সহযোগিতা পেতে স্বাস্থ্য বাতায়ন ১৬২৬৩ এবং ৩৩৩ নম্বরে ফোন করা যাবে। অনলাইনে করোনা নিয়ে যোগাযোগ করতে আইইডিসিআরের ই-মেইল [email protected] এবং ফেসবুক পেজে (Iedcr,COVID19 Control Room) যোগাযোগ করা যাবে। জরুরি প্রয়োজনে কল করুন- ৯৯৯

দিল্লিতে মন্দির পাহারায় মুসলিমরা মসজিদে হিন্দুরা

ইত্যাদি ডেস্ক

প্রকাশিত: ০৯:৪৭, ১ মার্চ ২০২০  

দিল্লির সহিংসতায় একাধিক অশান্ত চিত্র যেমন সামনে এসেছে, তেমনই মন্দির-মসজিদ রক্ষায় উঠে এসেছে গণতান্ত্রিক দেশের ঐক্যের চিত্র।-ছবি: সংগৃহীত

দিল্লির সহিংসতায় একাধিক অশান্ত চিত্র যেমন সামনে এসেছে, তেমনই মন্দির-মসজিদ রক্ষায় উঠে এসেছে গণতান্ত্রিক দেশের ঐক্যের চিত্র।-ছবি: সংগৃহীত


দিল্লিতে নাগরিকত্ব সংশোধনী আইন (সিএএ) ঘিরে সহিংসতার মধ্যে নজিরবিহীন ঘটনা ঘটেছে।

উত্তর দিল্লির মৌজপুরের নূর-ই-ইলাহি গলিতে পাশাপাশি অবস্থিত আজিজিয়া মসজিদ এবং হনুমান মন্দির রক্ষায় পাহারা দিয়েছেন অপর ধর্মের অনুসারীরা। সহিংসতার উত্তাপ টের পেতেই হনুমান মন্দির পাহারা দিয়েছেন মুসলিমরা। অপরদিকে আজিজিয়া মসজিদ পাহারা দিয়েছেন হিন্দুরা। খবর আনন্দবাজার পত্রিকার।

দিল্লির সহিংসতায় একাধিক অশান্ত চিত্র যেমন সামনে এসেছে, তেমনই মন্দির-মসজিদ রক্ষায় উঠে এসেছে গণতান্ত্রিক দেশের ঐক্যের চিত্র। মৌজপুরে সহিংসতার খবর পৌঁছতেই নূর-ই-ইলাহির মন্দির-মসজিদ এলাকায় তখন ঐক্যের চিত্র। একত্রিত হয়ে মানুষের পাশে দাঁড়ানোর লড়াই। সতর্ক হয়ে যান বাসিন্দারা। সহিংসতার খবর পেতেই মন্দির আগলে ধরেন মুসলিমরা, হিন্দুরা পাহারা দিলেন মসজিদ।

রোববার এলাকায় পাথর ছোড়াছুড়ি শুরু হতেই এলাকার সিনিয়র নাগরিকরা বৈঠকে বসেন। একসঙ্গে ঠিক করেন হিংসা নয়, পারিপার্শ্বিক অবস্থা যাই হোক না কেন, এতদিন যেভাবে ছিলেন এখনও তেমনভাবেই থাকবেন তারা। এলাকার বাসিন্দা ফয়জান বলেন, আমাদের এ অঞ্চলে হিন্দু-মুসলমানের কোনো বিভেদ নেই। আমাদের শৈশব মন্দির ও মসজিদে কেটেছে। খবরটি ছড়িয়ে পড়ার কিছুক্ষণ পর, একদল মন্দিরের পাশ থেকে গলিতে প্রবেশের চেষ্টা করেছিল।

উভয় উপাসনালয়ে আক্রমণ করতে চেয়েছিল তারা। তবে আমরা প্রতিরোধ করেছি। একই এলাকার বাসিন্দা সুনীল কুমার বলেন, আমাদের একে অপরের প্রতি বিশ্বাস রয়েছে। অনেকেই আহত হয়ে আমাদের এলাকায় আসেন চিকিৎসার জন্য। তাদের সুস্থ করে বাড়ি পৌঁছে দিয়েছি। আমাদের এ সম্প্রীতি আগামীতেও একই থাকবে।

নিউজওয়ান২৪.কম/এমজেড

ইত্যাদি বিভাগের সর্বাধিক পঠিত