ঢাকা, ১৪ অক্টোবর, ২০১৯
সর্বশেষ:
আওয়ামী লীগের জাতীয় সম্মেলন ডিসেম্বরে হেল্পলাইন ১৬২৬৩ এ কল করলেই ডাক্তারের পরামর্শ ডেঙ্গি নিয়ন্ত্রণে একটি সমন্বিত পদক্ষেপ খুবই জরুরি

থানাকে গণমুখী করতে প্রয়োজনে নিজে ওসিগিরি করবো: ডিএমপি কমিশনার

স্টাফ রিপোর্টার

প্রকাশিত: ২২:২৫, ১৫ সেপ্টেম্বর ২০১৯  

রাজধানীর সকল থানাকে জনমূখী করতে প্রয়োজনে নিজেই থানায় গিয়ে ওসিগিরি (ওসির দায়িত্ব পালন) করবেন বলে ঘোষণা দিয়েছেন নয়া ডিএমপি কমিশনার শফিকুল ইসলাম। নয়া দায়িত্ব নেওয়ার পর গতকাল রবিবার প্রথমবারের মতো ডিএমপি মিডিয়া সেন্টারে এক সংবাদ সম্মেলনে এই ঘোষণা দেন  এ সময় ডিএমপি’র ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন। 

ডিএমপি কমিশনার শফিকুল এসময় বলেন, অসহায় ও বিপদগ্রস্থ মানুষ খুব স্বাভাবিকভাবে থানায় গিয়ে যাতে কথা বলতে পারে, কোনোরকম হয়রানি ছাড়া মামলা ও জিডি করতে পারে এবং থানা থেকে বের হয়ে যেন এই বোধটি হয়- পুলিশ আন্তরিকভাবে তাকে আইনি সেবা দিবে ও ন্যায় বিচার পাবে। প্রতিটি মানুষ যাতে এই বিশ্বাস নিয়ে থানা থেকে ফিরতে পারে, সেল্েয আমরা কাজ করে যাবো। 

ডিএমডি কমিশনারকে এসময় সাংবাদিকরা প্রশ্ন করেন, ঢাকার বিভিন্ন থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তারা ঘুরেফিরে ঢাকাতেই থাকছেন, তাদের অনেকের বিরুদ্ধে অনেক অভিযোগও রয়েছে, এরপরও পুলিশের ডিসি- এডিসিদের বদলি করা হলেও অভিযুক্ত ওসিদের বদলি করা হয়না কেন- এ ধরনের প্রশ্নে ডিএমপি কমিশনার জানান, দায়িত্ব নেওয়ার পর তিনি ডিএমপির সব ওসিকে ডেকেছিলেন। তাদের বলেছেন, থানায় কোনো পুলিশ সদস্যের মাধ্যমে কেউ যদি অন্যায় আচরণের শিকার হন, তবে তাকে (পুলিশ সদস্যকে) রার কোনো চেষ্টা তিনি (ডিএমপি কমিশনার) করবেন না। তিনি আরও বলেন, ‘পাশাপাশি কোনো নিরাপরাধ মানুষ যাতে পুলিশের হয়রানি, চাঁদাবাজির শিকার না হয় অথবা পুলিশের সেবা পেতে কোনো আর্থিক লেনদেন না হয় সে বিষয়ে আমি কঠোর থাকবো। মোটকথা আমরা থানাকে গণমুখী ও জনবান্ধব করতে চাই।’ 

ডিএমপি কমিশনার শফিকুল বলেন, ‘নিজেদের অন্যায় আচরণের জন্য আমাদের অফিসারদের রা করার চেষ্টা করবো না। প্রয়োজনে ডিএমপির জ্যেষ্ঠ কর্মকর্তারা থানায় বসে সাধারণ মানুষের সঙ্গে কথা বলবেন।’

মেট্রোপলিটন এলাকায় ওসির দায়িত্ব জেলা শহরের চেয়ে আলাদা জানিয়ে ডিএমপি কমিশনার এসময় বলেন, ‘জেলা শহরে রাত ১০টার পর তেমন কোনো কাজ থাকে না। এখানে (মেট্রোপলিটন এলাকায়) রাত দুটো পর্যন্ত ওসিকে কাজ করতে হয়।’ 

রাজধানীর বংশালে একজন মুক্তিযোদ্ধার বাড়ি দখলের ঘটনা তুলে ধরে প্রশ্ন করা হলে পুলিশ কমিশনার বলেন, ‘ওই ঘটনার পর ডিসিকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছে।’ কিন্তু ওসিকে তার পদে বহাল রেখে বিভাগীয় মামলা হয়েছে- জানালে এ বিষয়ে ডিএমপি কমিশনার বলেন, ‘কার দায় কতটুকু, তা বিবেচনা করা হয়েছে, আমি কাগজপত্র দেখবো।’ 
রাজধানীর ট্রাফিক ব্যবস্থাপনা প্রসঙ্গে প্রশ্ন করলে কমিশনার জানান, সকালে ও বিকালে অফিস ছুটির সময় ট্রাফিকের ডিসিসহ ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের মাঠে থাকার নির্দেশনা দিয়েছেন তিনি। তিনি বলেন, ‘সার্জেন্ট ও টিআইদের ওপর শুধু দায়িত্ব না দিয়ে, এসব কর্মকর্তা যেন মাঠে থাকে তা নিশ্চিত করা হবে।’ 
রাজনৈতিকভাবে পুলিশকে ব্যবহার করা হচ্ছে কিনা জানতে চাইলে ডিএমপি কমিশনার পাল্টা প্রশ্ন করে বলেন, ‘রাজনৈতিক পরিচয় দেখে কখন কে কি করছে বলুন, কখন কি করা হয়েছে বলুন? পুলিশ আইনের মধ্যে থেকেই কাজ করবে।’ 
জঙ্গিবাদ ও উগ্রবাদ দমনের বিষয়ে জানতে চাইলে কমিশনার শফিকুল বলেন, ‘জঙ্গিবাদ এমন একটি মতবাদ, যারা এই মতবাদে একবার বিশ্বাসী হয়, সেখান থেকে তাদের ফিরিয়ে আনাটা দুরূহ। তবে আমরা পুলিশের প থেকে মানুষকে বুঝানোর জন্য বাড়ি বাড়ি যাচ্ছি, শিা প্রতিষ্ঠান, মাদ্রাসায় যেয়ে কথা বলা হচ্ছে।’ 
সম্প্রতি পুলিশকে টার্গেট করে কয়েকটি ঘটনা ঘটেছে, এই বিষয়ে আপনার কী দিকনির্দেশনা রয়েছে? এই প্রশ্নের জবাবে ডিএমপি কমিশনার বলেন, ‘আমরা এসব ঘটনার প্রতিরোধ ও সতর্কতামূলক কিছু ব্যবস্থা রেখেছি। পাশাপাশি যারা এই ঘটনার সঙ্গে জড়িত তাদের চিহ্নিত করে  গ্রেপ্তারের ব্যবস্থা করা হচ্ছে।’
এছাড়া পুলিশের কোনো সদস্য মাদকের সঙ্গে সম্পৃক্ত থাকলে মাদক ব্যবসায়ীর মতো তার বিচার চলবে বলে জানান তিনি। 

নিউজওয়ান২৪.কম/আরকে
 

আরও পড়ুন
রাজধানী বিভাগের সর্বাধিক পঠিত