ঢাকা, ২৮ মে, ২০২০
সর্বশেষ:
সেহরি ও ইফতারের সময় সূচি : ঢাকায় প্রথম রোজার সেহরির শেষ সময় রাত ৪টা ৫ মিনিটে আর ইফতার হবে সন্ধ্যা ৬টা ২৮ মিনিটে। আইইডিসিআর এর করোনা কন্ট্রোল রুম (০১৭০০৭০৫৭৩৭) অথবা হটলাইন নম্বরে (০১৯৩৭১১০০১১, ০১৯৩৭০০০০১১, ০১৯২৭৭১১৭৮৪, ০১৯২৭৭১১৭৮৫, ০১৯৪৪৩৩৩২২২, ০১৫৫০০৬৪৯০১–০৫) যোগাযোগ করা যাবে। এ ছাড়া করোনাসংক্রান্ত তথ্য জানতে বা সহযোগিতা পেতে স্বাস্থ্য বাতায়ন ১৬২৬৩ এবং ৩৩৩ নম্বরে ফোন করা যাবে। অনলাইনে করোনা নিয়ে যোগাযোগ করতে আইইডিসিআরের ই-মেইল [email protected] এবং ফেসবুক পেজে (Iedcr,COVID19 Control Room) যোগাযোগ করা যাবে। জরুরি প্রয়োজনে কল করুন- ৯৯৯

তুলনামূলক কাছাকাছি দূরত্বে পৃথিবীসদৃশ গ্রহের সন্ধান পেল নাসা

ডেস্ক রিপোর্ট

প্রকাশিত: ০০:৫৬, ৮ জানুয়ারি ২০২০  

শিল্পীর দৃষ্টিতে প্লানেট ৭০০ ডি             ছবি: নাসা

শিল্পীর দৃষ্টিতে প্লানেট ৭০০ ডি ছবি: নাসা

নাসার গ্রহসন্ধানী কৃত্রিম উপগ্রহ টেস (টিইএসএস) পৃথিবীসদৃশ এক গ্রহের অবস্থান চিহ্নিত করেছে। পৃথিবী আকারের গ্রহটি প্রাণ টিকে থাকার মতো অনুকূল দূরত্বে থেকে তার সূর্যকে (টিওআই ৭০০) প্রদক্ষিণ করছে বলে জানিয়েছে যুক্তরাষ্ট্রের মহাকাশ গবেষণা সংস্থা নাসা। পৃথিবী থেকে প্রায় ১০০ আলোকবর্ষ দূরের ‘প্লানেট ৭০০ ডি’ নামের ওই গ্রহটি তার সূর্যকে ৩৭ দিনে একবার প্রদক্ষিণ করে। 

ধারণা করা হচ্ছে গ্রহটি পৃথিবীর মতো শিলাময় এবং এতে তরল পানি রয়েছে।

গ্রহটির আকার পৃথিবীর চেয়ে ২০% বেশি তবে তার সূর্যের আকার আমাদের সূর্যের অর্ধেকের চেয়ে কম, মাত্র ৪০%। তবে সূর্য থেকে পৃথিবী যে পরিমাণ শক্তি পায় ৭০০ ডি তার তুলনায় ৮৬% শতাংশ শক্তি পেয়ে থাকে। 

হাওয়াইয়ের হনুলুলুতে গত সোমবার অনুষ্ঠিত আমেরিকান অ্যাস্ট্রোনমিক্যাল সোসাইটির বার্ষিক সভায় নাসার জেট প্রোপালসন ল্যাবরেটরির পক্ষ থেকে এ তথ্য প্রকাশ করা হয়। স্পিৎসার (ঝঢ়রঃুবৎ) স্পেস টেলিস্কোপ কর্তৃপক্ষ নাসার এই আবিষ্কারকে স¡ীকৃতি দিয়েছে।

গ্রহটি তার সূর্যের সঙ্গে টাইডালি লক্ড অবস্থায় আছে। টাইডালি লক্ড বলতে কোনো গ্রহ বা উপগ্রহের এমন অবস্থা বোঝায় যা আবর্তণকালে তার শুধুমাত্র একটি দিক সঙ্গী গ্রহ বা নক্ষত্রের দিকে মুখ করে থাকে। যেভাবে একমাত্র উপগ্রহ চাঁদ আমাদের পৃথিবীর দিকে মুখ করে প্রদক্ষিণ করছে। এক্ষেত্রে সন্তরণশীল গ্রহ বা উপগ্রহটি তার নিজ অক্ষের ওপর একবার পাঁক খেতে যে সময় নেয় ঠিক একই সময় নেয় তার সঙ্গী নক্ষত্র বা গ্রহটিকে আবর্তন করতে।  

নাসার জ্যোতিপদার্থ বিভাগের পরিচালক পল হার্টজ জানান, টেস-এর নকশা প্রণয়ন ও উৎক্ষেপণ করা হয়েছিল বিশেষত পৃথিবীর কাছাকাছি নক্ষত্রগুলোকে প্রদক্ষিণরত পৃথিবী আকারের গ্রহ খুঁজে বের করার জন্য।
 
এর আগে কেপলার স্পেস টেলিস্কোপ পৃথিবীসদৃশ ও সমআকারের বেশকিছু গ্রহ খুঁজে পেয়েছে। তবে প্লানেট ৭০০ ডি আবিষ্কারের মাধ্যমে ২০১৮ সালে উৎক্ষেপণ করা টেস এই প্রথম এরকম সাফল্য দেখালো। সূত্র: স্পেস.কম
নিউজওয়ান২৪.কম/এআই

ইত্যাদি বিভাগের সর্বাধিক পঠিত