ঢাকা, ১৫ নভেম্বর, ২০১৯
সর্বশেষ:
জরুরি প্রয়োজনে কল করুন- ৯৯৯ আওয়ামী লীগের জাতীয় সম্মেলন ডিসেম্বরে হেল্পলাইন ১৬২৬৩ এ কল করলেই ডাক্তারের পরামর্শ

‘ডোপ টেস্ট’ কী?  জেনে নিন...

ইত্যাদি ডেস্ক

প্রকাশিত: ১০:৪৭, ১৭ অক্টোবর ২০১৯  

ফাইল ফটো

ফাইল ফটো

মাদক বা এ্যলকোহল জাতীয় কিছু কিছু নেশাকর পন্য আছে যার রেশ শরীরে থেকে যায়। আর এগুলোই ডোব টেস্টের মাধ্যেমে ধরা হয়। 

খেলাধুলায় আরটিফিসিয়াল কিছু ব্যবহার করে লাভবান হওয়ার সুযোগ নাই।

আর তাই যখনই কোনো খেলোয়াড়ের ওপর ক্রীড়া নিয়ন্ত্রণ সংস্থাগুলোর সন্দেহ হয় বা সন্দেহের অভিযোগ তোলা হয়। তখন তারা তাকে সোকজ করে থাকে। পরবর্তীতে ওই খেলোয়াড়কে ডোব টেস্টের সম্মুখীন হতে হয়। যদি ফলাফল নেগিটিভ হয় তাহলে তাকে অর্থদণ্ড, বরখাস্ত বা কারাভোগ দিয়ে থাকে ক্রিড়া আইন অনুযায়ী। 

প্রযুক্তির উন্নতির কারণে অনেক ক্রীড়াবিদই এমন সব নিষিদ্ধ পদার্থ ব্যবহার করেন, যার ফলে ক্রীড়া নৈপুন্যে সাময়িক ভাবে অতিরিক্ত শক্তির যোগান পায়।

যেখানে দেহের স্বাভাবিক শক্তির চেয়ে অতিরিক্ত শক্তি সঞ্চারিত হয়, যার ফলে স্বাভাবিক ক্রীড়াবিদরা হেড়ে যায়। এই নিষিদ্ধ কর্মকান্ড প্রতিহত করার জন্যে প্রতিটা আন্তর্জাতিক ক্রীড়াবিদকে চিকিৎসা বিজ্ঞানের বিভিন্ন পরীক্ষার সম্মুখীন হতে হয়, একেই ডোপিং টেষ্ট বলে।

নিউজওযান২৪.কম/এমজেড

ইত্যাদি বিভাগের সর্বাধিক পঠিত