ঢাকা, ০১ অক্টোবর, ২০২০
সর্বশেষ:
আইইডিসিআর এর করোনা কন্ট্রোল রুম (০১৭০০৭০৫৭৩৭) অথবা হটলাইন নম্বরে (০১৯৩৭১১০০১১, ০১৯৩৭০০০০১১, ০১৯২৭৭১১৭৮৪, ০১৯২৭৭১১৭৮৫, ০১৯৪৪৩৩৩২২২, ০১৫৫০০৬৪৯০১–০৫) যোগাযোগ করা যাবে। এ ছাড়া করোনাসংক্রান্ত তথ্য জানতে বা সহযোগিতা পেতে স্বাস্থ্য বাতায়ন ১৬২৬৩ এবং ৩৩৩ নম্বরে ফোন করা যাবে। অনলাইনে করোনা নিয়ে যোগাযোগ করতে আইইডিসিআরের ই-মেইল [email protected] এবং ফেসবুক পেজে (Iedcr,COVID19 Control Room) যোগাযোগ করা যাবে। জরুরি প্রয়োজনে কল করুন- ৯৯৯

গুরুজি আমি আসছি- বলেই ৮ তলা থেকে ঝাঁপ দিলেন ইঞ্জিনিয়ার!

নিউজ ডেস্ক

প্রকাশিত: ১২:৫৪, ১২ নভেম্বর ২০১৯  

গুরুজি আমি আসছি... এই বলেই আটতলার ওপর থেকে ঝাঁপ দিলেন ইঞ্জিনিয়ার মহাশয়। ভারতের উত্তর প্রদেশের গাজিয়াবাদ ক্রসিং রিপাবলিক এলাকায় চাঞ্চল্যকর এ ঘটনা ঘটেছে। রাজস্থানবাসী এক কথিত গুরুর বচনে এভাবে আত্মঘাতী হন স্বপ্নীল নামের ২৭ বছর বয়সী ওই প্রকৌশলী। নিহত ইঞ্জিনিয়ারের পিতা কৃষ্ণনন্দন সিং এ ঘটনায় রাজস্থানের ঝুনঝুনু এলাকার বাসিন্দা মনোজকুমার শর্মার বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করেছেন। 

পিতা কৃষ্ণনন্দন জানান, তিনি সকালবেলা ছেলের সঙ্গে নাশতা করছিলেন। এসময় হঠাৎ ছেলে উঠে বলে, গুরুজি আমি আসছি... একথা বলার পর সোজা সে ব্যালকনির দিকে যায় এবং সেখান থেকে ঝাঁপিয়ে পড়ে নিচে। 

পিতার বরাত দিয়ে এনবিটি জানায়, স্বপ্নীল ইউটিউবে তার গুরু মনোজের বিভিন্ন বক্তব্যের নিয়মিত শ্রোতা ছিল। শেষমেষ এর প্রভাবেই সে আত্মঘাতী হয়। মামলা দায়েরের পর গাজিয়াবাদের বিজয়নগর থানা পুলিশ ঘটনার তদন্ত শুরু করেছে। মনোজের ফোন রেকর্ডও ও অন্যান্য তথ্য যাচাই করে দেখছে তারা।

আজ (মঙ্গলবার) ভারতের প্রভাবশালী হিন্দি পত্রিকা জাগরন.কম জানায়, নিহত ইঞ্জিনিয়ারের পিতা কৃষ্ণনন্দন সিং এ ঘটনায় রাজস্থানের ঝুনঝুনু এলাকার বাসিন্দা মনোজকুমার শর্মার বিরুদ্ধে আত্মহত্যায় প্ররোচনার মামলা দায়ের করেছেন। তিনি জানান, স্বপ্নীল ইউটিউবে তার গুরু মনোজের বিভিন্ন বক্তব্যের নিয়মিত শ্রোতা ছিল। শেষমেষ এর প্রভাবেই সে আত্মঘাতী হয়। মামলা দায়েরের পর গাজিয়াবাদের বিজয়নগর থানা পুলিশ ঘটনার তদন্ত শুরু করেছে।

লেখাপড়া শেষ করে মনোজ নয়দা এলাকার একটি প্রতিষ্ঠানে সফটঅয়্যার ইঞ্জিনিয়ার হিসেবে কর্মরত ছিল। কৃষ্ণনন্দন অভিযোগ করেন, গুরুর ধোঁকায় পড়ে তার ছেলের এই মর্মান্তিক পরিণতি হয়েছে। স্বপ্নীলের মা কমল দেবি জানান, হঠাৎ করেই মনোজ ইউটিউবে মনোজকুমারের বিভিন্ন বয়ান শোনায় মনোযোগী হয়ে ওঠে। চলতি বছরের মার্চে হরিদ্বারে গিয়ে সে দেখাও করে গুরুর সঙ্গে। কমলের ধারণা সেখান থেকেই তার ছেলে মগজধোলাই হয়ে ফেরে। মাকে তখন সে জানায়, হরিদ্বার থেকে ফেরার পর থেকে সে প্রশান্তি বোধ করছে। স্বপ্নীল নিজের ঘরের দরজা বন্ধ করে দীর্ঘক্ষণ তার গুরুর সঙ্গে ফোনে কথা বলতো।

ক্রসিং রিপাবলিক মহল্লার মহাগুন মাস্কট অ্যাপার্টমেন্টের আট তলা থেকে লাফিয়ে পড়ে আত্মহত্যা করে স্বপ্নীল।

নিউজওয়ান২৪.কম/আরকে

ইত্যাদি বিভাগের সর্বাধিক পঠিত