ঢাকা, ১৪ অক্টোবর, ২০১৯
সর্বশেষ:
আওয়ামী লীগের জাতীয় সম্মেলন ডিসেম্বরে হেল্পলাইন ১৬২৬৩ এ কল করলেই ডাক্তারের পরামর্শ ডেঙ্গি নিয়ন্ত্রণে একটি সমন্বিত পদক্ষেপ খুবই জরুরি

ইরানে পাকড়াও হওয়া পশ্চিমা ড্রোনের প্রদর্শনী

নিউজ ডেস্ক

প্রকাশিত: ১৯:৪৪, ২২ সেপ্টেম্বর ২০১৯  

ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

উপসাগরীয় কট্টরপন্থি দেশ ইরানে একটি ড্রোন প্রদর্শনীর আয়োজন করা হয়েছে। ইরানের দাবি মতো, তাদের আকাশসীমা লঙ্ঘন করায় বিভিন্ন সময়ে আটক বেশ কিছু আমেরিকান ও ব্রিটিশ ড্রোন নিয়ে এ প্রদর্শনীর আয়োজন করা হয়েছে। দেশটির ইসলামি বিপ্লবী গার্ড বাহিনী (আইআরজিসি) শনিবার তেহরানে এ প্রদর্শনীর আয়োজন করে যার অন্যতম আকর্ষণ ছিল ‘ফিনিক্স’ নামের পাইলটবিহীন ব্রিটিশ বিমান বা ড্রোন। প্রসঙ্গত, আইআরজিসির অ্যারোস্পেস ডিভিশন বিশেষায়িত এই ড্রোনটি আটক করে যথেষ্ট গর্বিত।

প্রসঙ্গত, যে কোনো দিনে বা রাত্রে যে কোনো আবহাওয়ায় যেকোনো সময় শত্রুর অবস্থানে নিখূঁত হামলা চালাতে সক্ষম ব্রিটিশ ড্রোন ফিনিক্স শত্রু বাহিনী বা দেশের ওপর গোয়েন্দা নজরদারি এমনকি আকাশে উড্ডীন উড়োজাহাজের নিয়ন্ত্রণের কাজেও সমান দক্ষ। ঘণ্টায় সর্বোচ্চ ১৬৬ কিলোমিটার বেগে ৫.৬ মিটার লম্বা ডানাবিশিষ্ট এই ড্রোনটি উড়তে পারে টানা পাঁচ ঘণ্টা।

আইআরজিসির ওই প্রদর্শনীতে স্থান পেয়েছে যুক্তরাষ্ট্রের একটি ড্রোন যা ‘অ্যারোসন্ড এইচকিউ’ নামে পরিচিত। ভূমি থেকে সোজা উপরের দিকে উড়ে যেতে সক্ষম এই ড্রোন ইলেকট্রনিক যুদ্ধে চমকদার ভূমিকা দেখাতে পারে। এছাড়া দিবারাত্রির যে কোনো সময় শত্রুর অবস্থানে গুপ্তচরবৃত্তি করতেও সমান পটু এটি।

শনিবারের ওই প্রদর্শীতে যুক্তরাষ্ট্রের তৈরি ‘ডেজার্ট হক’ নামের আরেকটি ড্রোন প্রদর্শিত হয়। মাত্র ০.৮৬ মিটার লম্বা এবং ৩.২ কেজি ওজনের এই ড্রোন একটি ইলেকট্রিক ইঞ্জিনের সাহায্যে প্রায় এক ঘণ্টা আকাশে উড়তে পারে।

পশ্চিমা বিশ্বের চমক সৃষ্টিকারী এসব অত্যাধুনিক মনুষ্যবিহীন ক্ষুদ্রাকৃতির কিন্তু সাফল্যের ক্ষেত্রে প্রচলিত যুদ্ধাস্ত্রের চেয়ে হাজারগুন ক্ষমতাবান যুদ্ধযান শত্রুপক্ষের জন্য প্রবল আতঙ্কের নাম। ইরান এমনি কয়েকটি আলোচিত মডেলের ড্রোন আটক করার দাবি করে আসছিল দীর্ঘ কয়েকবছর ধরেই। দেশটি এর আগে একাধিকবারে ঘোষণা করেছে তাদের হাতে আটক শত্রু বাহিনীর যেকোনো ড্রোনের ওপর রিভার্স ইঞ্জিনিয়ারিং চালিয়ে সেগুলোর প্রযুক্তি রপ্ত করতে সক্ষম হয়েছে তারা। অর্থাৎ দূর নিয়ন্ত্রিত এসব যানের রেডিও কমিউনিকেশনে বিভ্রম সৃষ্টি করে সেগুলোকে নিজেদের নিয়ন্ত্রণে নিয়ে আসার দাবি করে থাকে তেহরান। এদিকে, চলতি বছরের জুনে ইরানের হরমুজগান প্রদেশের আকাশসীমায় যুক্তরাষ্ট্রের একটি গোয়েন্দা ড্রোন গুলি করে ভূপাতিত করার দাবি করে আইআরজিসি। তবে সেই ড্রোনটিকে অক্ষত অবস্থায় হস্তগত করতে পারেনি তারা।

প্রসঙ্গত, ২০১৫ সালে আফগানিস্তান থেকে উড়ে আসা একটি আরকিউ-১৭০ সেন্টিনেল ড্রোন অক্ষত অবস্থায় নিজেদের ভূমিতে নামিয়ে নিয়েছিল ইরানি সশস্ত্র বাহিনীর সদস্যরা। ইরানিদের দাবি, ড্রোনটি তাদের আকাশসীমায় অনুপ্রবেশ করার পর ইরানি বিশেষজ্ঞরা এটির দূর নিয়ন্ত্রণ নেটওয়ার্কে হানা দিয়ে তার নিয়ন্ত্রণ গ্রহণ করে এবং নির্বিঘ্নে মাটিতে নামিয়ে আনে। সূত্র: রেডিও তেহরান
নিউজওয়ান২৪.কম/আরকে

ইত্যাদি বিভাগের সর্বাধিক পঠিত