ঢাকা, ১৪ আগস্ট, ২০২০
সর্বশেষ:
সেহরি ও ইফতারের সময় সূচি : ঢাকায় প্রথম রোজার সেহরির শেষ সময় রাত ৪টা ৫ মিনিটে আর ইফতার হবে সন্ধ্যা ৬টা ২৮ মিনিটে। আইইডিসিআর এর করোনা কন্ট্রোল রুম (০১৭০০৭০৫৭৩৭) অথবা হটলাইন নম্বরে (০১৯৩৭১১০০১১, ০১৯৩৭০০০০১১, ০১৯২৭৭১১৭৮৪, ০১৯২৭৭১১৭৮৫, ০১৯৪৪৩৩৩২২২, ০১৫৫০০৬৪৯০১–০৫) যোগাযোগ করা যাবে। এ ছাড়া করোনাসংক্রান্ত তথ্য জানতে বা সহযোগিতা পেতে স্বাস্থ্য বাতায়ন ১৬২৬৩ এবং ৩৩৩ নম্বরে ফোন করা যাবে। অনলাইনে করোনা নিয়ে যোগাযোগ করতে আইইডিসিআরের ই-মেইল [email protected] এবং ফেসবুক পেজে (Iedcr,COVID19 Control Room) যোগাযোগ করা যাবে। জরুরি প্রয়োজনে কল করুন- ৯৯৯

‘গোল্ডেন ব্লাড’ 

প্রকাশিত: ১০:২৪, ১১ এপ্রিল ২০১৯  

বিশ্বে ৪৩ জনের শরীরে রয়েছে ‘গোল্ডেন ব্লাড’ গ্রুপের রক্ত (ফাইল ছবি)

বিশ্বে ৪৩ জনের শরীরে রয়েছে ‘গোল্ডেন ব্লাড’ গ্রুপের রক্ত (ফাইল ছবি)

যাদের নেগেটিভ গ্রুপের রক্ত, বিপদের সময় তাদের রক্ত খুঁজে পেতে রীতিমতো হিমশিম খেতে হয় আত্মীয়-পরিজনদের। কিন্তু এমনও রক্তের গ্রুপ রয়েছে যে গ্রুপের মানুষের সংখ্যা গোটা পৃথিবীতে সর্বসাকুল্যে ৫০ জনেরও কম। 

অবিশ্বাস্য হলেও এটিই বিশ্বের বিরলতম রক্তের গ্রুপ। রক্তের এই গ্রুপ ‘গোল্ডেন ব্লাড’ নামে পরিচিত।

১৯৬১ সাল থেকে চিকিৎসকেরা মনে করছেন রক্তে ‘আরএইচ’ ফ্যাক্টরের অভাবে কোনো মানুষই বেঁচে থাকতে পারেনা। ১৯৬১ সালে এই বিরলতম রক্তের গ্রুপের তথ্যটি সামনে এসেছে। রক্তে ‘আরএইচ’ ফ্যাক্টরের অভাবে লোহিত রক্ত কণিকা অ্যান্টিজেন, প্রতি রক্তের গ্রুপে একই রকমের অ্যান্টিজেন থাকে। কোনো মানুষের রক্তের গ্রুপ বা বিভাগ তখনই দুর্লভ বিভিন্ন ক্ষেত্রে যখন অ্যান্টিজেন থাকেনা যা ৯৯ শতাংশ মানুষের মধ্যেই থাকে।

রক্তদান করতে গেলে সেই মানুষের রক্তের বিভাগ জানতে পারা যায়। যাদের রক্ত নেগেটিভ ‘আরএইচ’ থাকে তাদের কোনো ভাবেই পজেটিভ রক্ত দেয়া উচিৎ নয়। যদি তাই করা হয় শরীরের অ্যান্টিজেনের উপস্থিতি অ্যান্টিবডির ফলে রক্তে পার্টিক্যালগুলো সযুক্ত হয়না। ফলে পরিস্থিতি অত্যন্ত জটিল ও মৃত্যুও হতে পারে।

বিভিন্ন রক্তের গ্রুপের মধ্যে গোল্ডেন ব্লাডগ্রুপ বা সম্পূর্ণ আলাদা হয়ে থাকে এই গ্রুপের রক্তের তাই এই গ্রুপের রক্তের প্রয়োজনীয়তা সব সব সময়েই বেশি থাকে।

এই দুর্লভ গ্রুপের রক্ত পৃথিবীজুড়ে মাত্র ৪৩ জনের মধ্যেই পাওয়া গিয়েছে। ব্রাজিল, জাপান, আয়ারল্যান্ড, আমেরিকা রয়েছে। রেয়ারেস্ট বা অত্যন্ত দুর্লভ রক্ত যাদের রয়েছে ডাক্তার তাদের সব সময়ে রক্তদানে উৎসাহিত করে থাকেন কেননা কাজে লাগলে প্রয়োজনে রক্ত পাওয়া যায়। অনেক কম লোকেদের এই গ্রুপের রক্ত আছে যাদের।
 
১৯৫২ সালের একটি সমীক্ষা প্রকাশ্যে এসেছে যার থেকে জানা গেছে, পৃথিবীজুড়ে মাত্র ৪ জনের এই রক্ত ছিলো। তবে এই গ্রুপ দুর্লভ তবে দুর্লভতর হলো ‘গোল্ডেন গ্রুপ’।

নিউজওয়ান২৪.কম/আ.রাফি

লাইফস্টাইল বিভাগের সর্বাধিক পঠিত