ঢাকা, ০৪ ডিসেম্বর, ২০২১
সর্বশেষ:

মিরসরাইয়ে ৬ হিন্দু বাড়িতে আগুন

চট্টগ্রাম সংবাদদাতা

প্রকাশিত: ০০:০০, ২৯ মার্চ ২০২১  

সংগৃহীত ছবি

সংগৃহীত ছবি

চট্টগ্রামের মিরসরাইয়ে এক রাতে ৬ হিন্দু পরিবারের বসতবাড়িতে অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা ঘটেছে। আগুন লাগার আগে তাদের ঘরের চালে ঢিল ছোড়া হয় বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। ঘটনাটি নাশকতা নাকি পূর্ববিরোধের জের ধরে, তা নিয়ে এলাকায় আলোচনা চলছে।

আজ (রবিবার) সকালে ঘটনাস্থলে গিয়ে দেখা যায়, ক্ষতিগ্রস্ত পরিবারগুলো আগুনে তাদের সর্বস্ব খুইয়ে মাটিতে নির্বাক বসে আছে। অনেকে কথাও বলতে পারছেন না।

শনিবার দিবাগত রাত পৌনে ২টায় উপজেলার মায়ানী ইউনিয়নের পূর্ব মায়ানী গ্রামের মনু ভূঁইয়া পাড়ার শীল বাড়িতে এ অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা ঘটে। অভিযোগ পাওয়া যায়, বসতবাড়িতে ঢিল ছোড়ার ৪৫ মিনিটের মধ্যে ৬টি পরিবারের ঘরে দাউ দাউ করে আগুন জ্বলে ওঠে। মুহূর্তেই আগুনের লেলিহান শিখায় ছাই হয়ে যায় দরিদ্র এসব সংখ্যালঘু পরিবারের সব স্বপ্ন।

ক্ষতিগ্রস্ত পরিবারের লোকজন, স্থানীয় হিন্দু সম্প্রদায়ের নেতা ও স্থানীয় ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যানের দাবি, এটি সাধারণ অগ্নিকাণ্ড নয় পরিকল্পিতভাবে আগুন লাগানো হয়েছে। তারা ধারণা করছেন জায়গা-জমি নিয়ে এলাকার দুটি মুসলিম পরিবারের সঙ্গে চলমান বিরোধই নিরীহ এসব হিন্দু পরিবারের জন্য কাল হয়েছে। তবে পুলিশ ও ফায়ার সার্ভিস কর্মকর্তাদের ধারণা বৈদ্যুতিক শর্টসার্কিট থেকে আগুন লাগতে পারে।

পুলিশ ও প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়, রাত পৌনে ২টায় অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা ঘটে। এ সময় পরিবারের লোকজনের চিৎকারে প্রতিবেশীরা ছুটে এসে আগুন নেভানোর চেষ্টা করেও ব্যর্থ হয়। পরে খবর পেয়ে মিরসরাই ফায়ার সার্ভিস ঘটনাস্থলে গিয়ে আগুন নেভানোর চেষ্টা করে।

অগ্নিকাণ্ডের ঘটনায় বাসুদেব শীল, জয়দেব শীল, রঞ্জিত শীল, নয়ন শীল, স্বপ্না রানি শীল ও সহদেব শীলের বসতঘর পুড়ে ছাই হয়ে যায়। তবে এতে হতাহতের কোন ঘটনা ঘটেনি।

ঘটনার রাতে ও রবিবার সকালে ঘটনাস্থলে যান চট্টগ্রাম জেলা পুলিশের সহকারী পুলিশ সুপার (মিরসরাই সার্কেল) লাবিব আব্দুল্লাহ, মিরসরাই উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ভারপ্রাপ্ত) সুবল চাকমা ও মিরসরাই থানার ওসি মজিবুর রহমান।

ক্ষতিগ্রস্ত স্বপ্না রানি শীল বলেন, আগুন লাগানোর ঘণ্টাখানেক আগে ঘরের টিনের চালে বেশ কয়েকটি ঢিল ছোড়া হয়। এ সময় আমরা সবাই জেগে ঘরের বাইরে গিয়ে কাউকে দেখতে না পেয়ে, ঘরে ফিরে আবার ঘুমানোর চেষ্টা করি। পরে রাত প্রায় পৌনে ২টায় সব কটি ঘরে একসঙ্গে আগুন লাগে। এটি সাধারণ কোন আগুন নয়, কেউ লাগিয়েছ।

ঘটনাস্থল পরিদর্শনে আসা স্থানীয় ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান কবির আহম্মদ নিজামী বলেন, এটি কোন সাম্প্রদায়িক গোষ্ঠীর নাশকতার আগুন নয়। এখানে ৫০ কোটি টাকা মূল্যের একটি জমি নিয়ে পার্শ্ববর্তী দুটি মুসলিম পরিবারের বিরোধ চলছে। মূলত ওই জমি এসব হিন্দু পরিবারগুলোর পূর্বপুরুষের। আমরা ধারণা করছি বিরোধ থেকে আগুন লাগানোর ঘটনা ঘটতে পারে।

মিরসরাই উপজেলা হিন্দু বৌদ্ধ খ্রিষ্টান ঐক্য পরিষদের সাধারণ সম্পাদক নূপুর ধর ঘটনাস্থল পরিদর্শন শেষে বলেন, এখানকার ৪টি ঘরে বিদ্যুৎ লাইন ছিল না। আর সব কটি ঘরে একযোগে আগুন লাগে। এটি কোন সাধারণ অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা নয়। তবে কোন সাম্প্রদায়িক গোষ্ঠীও ঘটনাটি ঘটায়নি। আমরা এ ঘটনার নিন্দা প্রকাশ করছি। পাশাপাশি প্রশাসনের কাছে বিষয়টি গভীর তদন্তের দাবি জানাচ্ছি। এ সময় তার সাথে উপস্থিত ছিলেন মিরসরাই উপজেলা যুব ঐক্য পরিষদের সভাপতি কল্যাণ রায় ও ছাত্র ঐক্য পরিষদের সভাপতি সৈকত চৌধুরী, সাধারণ সম্পাদক নয়ন শর্মা।

মিরসরাই থানার ওসি মজিবুর রহমান জানান, এটি সাম্প্রদায়িক কোন নাশকতা নয়, ফায়ার সার্ভিসের ভাষ্যমতে বৈদ্যুতিক শর্টসার্কিট থেকে আগুনের সূত্রপাত হয়। তবে অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা আমরা গভীরভাবে তদন্ত করছি। সেখানে পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে।

এদিকে মিরসরাই উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ভারপ্রাপ্ত) সুবল চাকমা জানান, আমরা ঘটনাস্থলে গিয়েছি। বিষয়টি তদন্ত করছেন মিরসরাই থানার অফিসার ইনচার্জ মজিবুর রহমান। এখনো এ বিষয়ে চূড়ান্ত কিছু বলার সময় আসেনি। আগে তদন্তের কাজ শেষ হোক।

স্বদেশ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত