ঢাকা, ০৩ জুলাই, ২০২০
সর্বশেষ:
সেহরি ও ইফতারের সময় সূচি : ঢাকায় প্রথম রোজার সেহরির শেষ সময় রাত ৪টা ৫ মিনিটে আর ইফতার হবে সন্ধ্যা ৬টা ২৮ মিনিটে। আইইডিসিআর এর করোনা কন্ট্রোল রুম (০১৭০০৭০৫৭৩৭) অথবা হটলাইন নম্বরে (০১৯৩৭১১০০১১, ০১৯৩৭০০০০১১, ০১৯২৭৭১১৭৮৪, ০১৯২৭৭১১৭৮৫, ০১৯৪৪৩৩৩২২২, ০১৫৫০০৬৪৯০১–০৫) যোগাযোগ করা যাবে। এ ছাড়া করোনাসংক্রান্ত তথ্য জানতে বা সহযোগিতা পেতে স্বাস্থ্য বাতায়ন ১৬২৬৩ এবং ৩৩৩ নম্বরে ফোন করা যাবে। অনলাইনে করোনা নিয়ে যোগাযোগ করতে আইইডিসিআরের ই-মেইল [email protected] এবং ফেসবুক পেজে (Iedcr,COVID19 Control Room) যোগাযোগ করা যাবে। জরুরি প্রয়োজনে কল করুন- ৯৯৯

‘সবাই পায় সোনার খনি আমরা পাই চোরের খনি’

মোস্তফা ফিরোজ

প্রকাশিত: ২১:১০, ১৪ সেপ্টেম্বর ২০১৯  

ছবি- সংগৃহীত

ছবি- সংগৃহীত

দুটো খবর কাছাকাছি সময়ে প্রকাশিত হলো। দুটোই আলোচিত। তবে খবর দুটোই বাংলাদেশের জন্য অসম্মান ও অমর্যাদার। একটি খবরে দেখা গেলো, বিশ্বের সেরা এক হাজার বিশ্ববিদ্যালয়ের তালিকায় বাংলাদেশের কোনো বিশ্ববিদ্যালয়ের নাম নেই। দক্ষিণ এশিয়ার ভিতরে ভারতে ৩৭টি ও পাকিস্তানের ৭টি বিশ্ববিদ্যালয়ের নাম আছে।

কতো দূর্ভাগা আমরা। অথচ, এক সময়ে আমরা মনে হয় ভুল করেই জানতাম যে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় প্রাচ্যের অক্সফোর্ড।

তবে, জ্ঞান বিজ্ঞান ও গবেষণায় বিশ্বের শিক্ষাঙ্গনের তালিকায় বাংলাদেশের নাম না থাকলেও নিশ্চয় জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের নামটি সবাই জানতে শুরু করেছে অন্য কারণে। সেটি হলো বিশ্ববিদ্যালয় উন্নয়ন প্রকল্পের টাকা ভাগ বাটোয়ারার আলোচনা। প্রকাশ্যে এমন আলোচনা বোধ হয় কখনো কোনদিন শোনা যায়নি। বিশ্বের তাবৎ বিশ্ববিদ্যালয়ের আলোচনা হয় সেখানকার শিক্ষা ও গবেষণার মান নিয়ে। আর বাংলাদেশের একটি বিশ্ববিদ্যালয়কে নিয়ে এখন প্রতিদিন আলোচনা হচ্ছে সেখানকার দুর্নীতি বিষয়ে। কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগ অভিযোগ করছে, ভিসির স্বামী আর ছেলে প্রকল্পের টাকার কমিশন নিয়ে ভাগ বাটোয়ারা করেছে।

ছাত্রলীগের বিশ্ববিদ্যালয় কমিটিকে ঈদের আগে এক কোটি ৬০ লাখ দেয়া হয়েছে। এটা নিয়ে সেখানে কে কতো ভাগ পাবে সেটা নিয়ে সমস্যা হয়েছে। তাদেরকে ভিসি কেন জানায়নি এজন্য তারা অনুযোগ করছে। আর ছাত্রলীগের বিশ্ববিদ্যালয় কমিটি বলছে, নেতাদের এসব কথা বানোয়াট। তারা কোন টাকা পায়নি। ভিসি বলছেন, রাব্বানী ও শোভন প্রকল্পের টাকার ৪ থেকে ৬ পারসেন্ট দাবি করে তার ওপর চাপ সৃষ্টি করছে। তিনি হাসপাতালে অসুস্থ ছিলেন। সেখানে গিয়েও চাপ দিয়েছে তারা। বাসায় গিয়েও একই রকম আচরণ করেছে। কিন্তু তিনি এসব অনৈতিক কাজে রাজী না হওয়ায় তার পরিবারকে জড়িয়ে তারা মিথ্যা বক্তব্য দিচ্ছে।

চিন্তা করুন দেশের একটি সর্বোচ্চ বিদ্যাপীঠে কি চলছে! আর এসব দুনীতি অনিয়ম নিয়ে সরকারের সর্বোচ্চ পর্যায় পর্যন্ত আলোচনা চলছে। ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় কমিটি ভেঙ্গে দেয়ার কথাও শোনা যাচ্ছে। অধঃপতনের আর কি বাকি আছে এখন সেটাই দেখতে হবে।

(মোস্তফা ফিরোজ: হেড অব নিউজ, বাংলাভিশন)

[এই বিভাগে প্রকাশিত লেখার বিষয়, মন্তব্য, বিশ্লেষণ সবকিছুই লেখকের একান্ত নিজস্ব মতের প্রকাশক]

নিউজওয়ান২৪.কম/আরএ

অসম্পাদিত বিভাগের সর্বাধিক পঠিত