ঢাকা, ৩১ মে, ২০২০
সর্বশেষ:
সেহরি ও ইফতারের সময় সূচি : ঢাকায় প্রথম রোজার সেহরির শেষ সময় রাত ৪টা ৫ মিনিটে আর ইফতার হবে সন্ধ্যা ৬টা ২৮ মিনিটে। আইইডিসিআর এর করোনা কন্ট্রোল রুম (০১৭০০৭০৫৭৩৭) অথবা হটলাইন নম্বরে (০১৯৩৭১১০০১১, ০১৯৩৭০০০০১১, ০১৯২৭৭১১৭৮৪, ০১৯২৭৭১১৭৮৫, ০১৯৪৪৩৩৩২২২, ০১৫৫০০৬৪৯০১–০৫) যোগাযোগ করা যাবে। এ ছাড়া করোনাসংক্রান্ত তথ্য জানতে বা সহযোগিতা পেতে স্বাস্থ্য বাতায়ন ১৬২৬৩ এবং ৩৩৩ নম্বরে ফোন করা যাবে। অনলাইনে করোনা নিয়ে যোগাযোগ করতে আইইডিসিআরের ই-মেইল [email protected] এবং ফেসবুক পেজে (Iedcr,COVID19 Control Room) যোগাযোগ করা যাবে। জরুরি প্রয়োজনে কল করুন- ৯৯৯

ভারতে বিতর্কিত নাগরিকত্ব সংশোধনী আইনের বলি ২০

ডেস্ক রিপোর্ট

প্রকাশিত: ১৬:২৯, ২১ ডিসেম্বর ২০১৯  

ভারতে গত সপ্তাহে পাস হওয়া বিতর্কিত নাগরিকত্ব সংশোধনী আইনের বিরুদ্ধে বিক্ষোভ-সংঘাতে অগিনগর্ভ বিভিন্ন রাজ্যে পুলিশের গুলি ও সংঘর্ষে কমপক্ষে ২০ জন নিহত হয়েছেন। পশ্চিমবঙ্গসহ আটটি রাজ্যে সপ্তাহব্যাপী চলমান বিক্ষোভ-সংঘাত-অগ্নিসংযোগ-সহিংসতার পরিপ্রেক্ষিতে আজ (শনিবার) মন্ত্রিসভার জরুরি বৈঠক ডেকেছেন দেশটির প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। 

এ সংবাদ দিয়েছে কাতারভিত্তিক সংবাদ মাধ্যম আল জাজিরা।

ভারতের সংবিধােনের সঙ্গে সাংঘর্ষিক ওই নাগরিকত্ব আইন মোতাবেক ২০১৫ সালের আগে বাংলাদেশ, পাকিস্তান ও আফগানিস্তান থেকে ‘ধর্মীয় নিপীড়নের’ শিকার হয়ে ভারতে আশ্রয় নেওয়াদের ভারতীয় নাগরিকত্ব দেওয়া হবে। বিরোধীরা বলছে, এ আইনের মাধ্যমে কট্টর হিন্দুত্ববাদী দল বিজেপির নেতা প্রধানমন্ত্রী মোদি ভারতকে হিন্দু রাষ্ট্র হিসেবে প্রতিষ্ঠার চেষ্টা করছেন। 

এদিকে সংবাদ সংস্থা রয়টার্সকে ভারতীয় এক সরকারি কর্মকর্তা নিশ্চিত করেছেন- এক জরুরি বৈঠকের জন্য সব মন্ত্রীকে তলব করেছেন প্রধানমন্ত্রী। নাগরিক সংশোধনী আইনের বিরোধিতায় দেশজুড়ে সহিংসতার বিষয়ে আলোচনা করতেই বৈঠকটি ডেকেছেন মোদি। 

উত্তরপ্রদেশ রাজ্য পুলিশের মুখপাত্র শিরিস চন্দ্র সংবাদ মাধ্যমকে জানিয়েছেন, গতকালের (শুক্রবার) বিক্ষোভে গুলিবিদ্ধ হয়ে আট বছর বয়সী এক শিশু ছাড়াও চারজন বিক্ষোভকারী নিহত হয়েছে। রাজধানী দিল্লি ছাড়াও উত্তরপ্রদেশ, আসাম, পশ্চিমবঙ্গে বিক্ষোভ করছে হাজার হাজার মানুষ। দিল্লিতে কারফিউ জারি থাকলেও তা ভঙ্গ করে সেখানে বিক্ষোভের প্রস্তুতি নিচ্ছে বিক্ষোভকারীরা। প্রকাশিত সংবাদে জানা গেছে, বিজেপি বা বিজেপি নেতৃত্বাধীন জোটের নিয়ন্ত্রণে থাকা এলাকাগুলোয় প্রধানত সহিংসতা এবং হতাহতের ঘটনা বেশি ঘটছে। মুসলিমদের দাবির পক্ষে একাত্মতা প্রকাশ করে বহু শিক্ষার্থী এবং বেসামরিক নাগরিক রাজপথে বিক্ষোভে অংশ নিয়েছেন।

অপরদিকে, উত্তরপ্রদেশের অনেক মানবাধিকার কর্মী জানিয়েছেন, পুলিশ তাদের বাড়ি এবং কার্যালয়ে অভিযান চালাচ্ছে। নতুন করে সমাবেশ বা বিক্ষোভে যেন তারা অংশ না নেন সেজন্য তাদের ওপর চাপ প্রয়োগ করা হচ্ছে। বিভিন্ন স্পর্শকাতর এলাকায় সহিংসতার ঘটনায় উত্তরপ্রদেশে কয়েক ডজন মানুষ আহত হয়েছে। প্রেস ট্রাস্ট অব ইন্ডিয়ার প্রতিবেদনে বলা হয়, উত্তর প্রদেশে গত দুদিনে ১৩ জেলায় সহিংসতার ঘটনায় ১১ জনের মৃত্যু হয়েছে।

নিউজওয়ান২৪.কম/জিএন

আরও পড়ুন
বিশ্ব সংবাদ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত