ঢাকা, ১৩ জুলাই, ২০২০
সর্বশেষ:
সেহরি ও ইফতারের সময় সূচি : ঢাকায় প্রথম রোজার সেহরির শেষ সময় রাত ৪টা ৫ মিনিটে আর ইফতার হবে সন্ধ্যা ৬টা ২৮ মিনিটে। আইইডিসিআর এর করোনা কন্ট্রোল রুম (০১৭০০৭০৫৭৩৭) অথবা হটলাইন নম্বরে (০১৯৩৭১১০০১১, ০১৯৩৭০০০০১১, ০১৯২৭৭১১৭৮৪, ০১৯২৭৭১১৭৮৫, ০১৯৪৪৩৩৩২২২, ০১৫৫০০৬৪৯০১–০৫) যোগাযোগ করা যাবে। এ ছাড়া করোনাসংক্রান্ত তথ্য জানতে বা সহযোগিতা পেতে স্বাস্থ্য বাতায়ন ১৬২৬৩ এবং ৩৩৩ নম্বরে ফোন করা যাবে। অনলাইনে করোনা নিয়ে যোগাযোগ করতে আইইডিসিআরের ই-মেইল [email protected] এবং ফেসবুক পেজে (Iedcr,COVID19 Control Room) যোগাযোগ করা যাবে। জরুরি প্রয়োজনে কল করুন- ৯৯৯

প্রেমিকার অন্যত্র বিয়ে: গুলিতে আত্মঘাতী তরুণ কনস্টেবল

ডেস্ক রিপোর্ট

প্রকাশিত: ২১:৩২, ৬ মার্চ ২০২০  

ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

নিজের নামে ইস্যুকৃত রাইফেল ‌দিয়ে নিজের ছোঁড়া গুলিতে এক পুলিশ কনস্টেবলের মৃত্যু হয়েছে। গতকাল (বৃহস্পতিবার) দিনগত রাতে বরিশাল জেলা পুলিশ লাইনসের নবনির্মিত ৬তলা ব্যারাক ভবনের ছাদে এ ঘটনা ঘটে। শুক্রবার বেলা ১১টার পর বিষয়টি জানাজানি হয়। এরপর কোতোয়ালী থানা পুলিশ হৃদয় চন্দ্র সাহা (২১) নামে নিহত কনস্টেবলের লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য মর্গে পাঠায়। এসময় তার পকেট থেকে উদ্ধার করা হয় ৩টি চিরকুট। 

পুলিশ জানায়,  হৃদয় চন্দ্র সাহা ভোলার বোরহানউদ্দিন উপজেলার চকদোষ গ্রামের সুকণ্ঠ চন্দ্র সাহার ছেলে। ১৫ মাস আগে তিনি পুলিশ কনস্টেবল পদে যোগ দেন। তার কর্মস্থল ছিল বরিশাল জেলা পুলিশ লাইন্সে আর আবাসস্থল বরিশাল জেলা পুলিশ ব্যারাকে। হৃদয় সাহা জেলা পুলিশ লাইনসের ২ নম্বর গেটে সেন্ট্রি ডিউটিতে নিয়োজিত ছিলেন। 

পুলিশের একটি সূত্র জানায়, প্রেমঘটিত কারণে কন্টেবল হৃদয় আত্মহত্যা করেছেন। প্রেমিকার অন্যত্র বিয়ে হয়ে যাওয়ার খবরে তিনি এমন অপরিনামদর্শী ঘটনা ঘটান। 

ঘটনার বিষয়ে বরিশাল জেলার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার নাঈমুল হক জানান, গত বৃহস্পতিবার রাত ১০টা থেকে ১২টা পর্যন্ত কনস্টেবল হৃদয়ের সেন্ট্রি ডিউটি ছিল পুলিশ লাইনসের ২ নম্বর গেট। রাতের যে কোনো এক সময় তিনি ৬তলা ব্যারাক ভবনের ছাদে উঠে নিজের নামে ইস্যুকৃত চাইনিজ রাইফেল দিয়ে নিজের থুতনি বরাবর এক রাউন্ড গুলি করেন হৃদয়। গুলিটি তার মস্তিষ্ক ভেদ করে বের হয়ে যায়। এ ঘটনার পর রাতভর তার মরদেহ ঘটনাস্থলে পড়েছিল। একইসঙ্গে পাশেই পড়েছিলো তার অস্ত্রটিও। আজ (শুক্রবার) বেলা ১১টার দিকে ব্যারাকের অন্যান্য বাসিন্দারা ছাদে উঠে হৃদয়ের রক্তাক্ত লাশ পড়ে থাকতে দেখেন। তার প্যান্টের পকেটে ৩টি চিরকুট পাওয়া যায়। এর একটি সবার উদ্দেশ্যে লেখা যাতে তিনি লিখেছেন, আমার মৃত্যুর জন্য কেউ দায়ী নয়’। একটি চিরকুট বাবা সুকণ্ঠ সাহাকে উদ্দেশ্য করে লেখা যাতে লেখা, ‘বাবা পৃথিবী ছেড়ে চলে গেলাম’। তৃতীয় চিরকুটে নিজ ছোট ভাইকে অনুরোধ করেছেন তাদের বাবাকে ‌'দেখভাল করার’। 

অতিরিক্ত পুলিশ সুপার নাঈমুল আরও জানান, হৃদয়ের প্যান্টের পকেটে মানিব্যাগে এক তরুণীর ছবি পাওয়া গেছে। চাঁদপুরের ওই তরুণীর সঙ্গে তার প্রেমের সম্পর্ক ছিল বলে ধারণা করা হচ্ছে। ২/৩ দিন আগে অন্যত্র বিয়ে হয়ে যায় মেয়েটির। এতে ক্ষোভে ও হতাশায় হৃদয় সাহা আত্মহত্যা করে থাকতে পারেন বলে প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে। 

বরিশাল মেট্রোপলিটন পুলিশের সহকারী কমিশনার (কোতয়ালী) রাসেল জানান, সুরতহাল শেষে লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য মর্গে পাঠানো হয়েছে এবং যথাযথ আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে। 

নিউজওয়ান২৪/আরকে

আরও পড়ুন
স্বদেশ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত