ঢাকা, ০৩ এপ্রিল, ২০২০
সর্বশেষ:
জ্বর, কাশি, শ্বাসকষ্ট, মাংসপেশি ও গাঁটে ব্যথাসহ করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হওয়ার উপসর্গ দেখা দিলে আইইডিসিআরের সঙ্গে যোগাযোগ করুন। আইইডিসিআরের হটলাইন নম্বর: ০১৯২৭৭১১৭৮৪, ০১৯২৭৭১১৭৮৫, ০১৯৩৭০০০০১১, ০১৯৩৭১১০০১১ জরুরি প্রয়োজনে কল করুন- ৯৯৯

পৃথিবীর বিখ্যাত হোটেল- যেখানে খেতে পয়সা লাগে না!

নিউজ ডেস্ক

প্রকাশিত: ১৩:২৪, ৯ ফেব্রুয়ারি ২০২০  

ছবি: ফেসবুক

ছবি: ফেসবুক

কালিমাখা আর ভাঙ্গাচোরা বেড়া দিয়ে ঘেরা বিচুলির ছাউনি বিস্তৃত অতি নিম্নমানের দেখা গেলেও সবার জীবনে এমন খাবারের হোটেল স্মৃতিময় হয়ে আছে। এই বিখ্যাত খাবারের হোটেলটি স্পেনের ইবিজা দ্বীপের হার্ড রক হোটেলকেও হার মানায়।

হার্ড রক হোটেলে একবেলা ভাত খেতে প্রতিজনের ব্যয় করতে হয় দুই হাজার ডলার। যা বাংলাদেশী টাকায় প্রায় এক লাখ ষাট হাজারেরও বেশি টাকা! কিংবা ধরুন মালদ্বীপের সমুদ্রের নিচের ইথা রেস্টুরেন্ট। পৃথিবীর সবচেয়ে সুন্দর রেস্টুরেন্ট হিসেবে স্বীকৃতি পাওয়া এই হোটেলে আপনি ঢুকলে আপনাকে পকেট ভর্তি টাকা নিয়ে যেতে হবে।

এমন তাবৎ বাঘা বাঘা নামি দামী হোটেলকে হার মানিয়ে বিশ্বের বুকে যে হোটলটি বুক উচু করে দাড়িয়ে আছে সেটি হলো “বাবার হোটল”। এই হোটেলে খেতে কোন পয়সা লাগে না। বরং ভালবাসা, স্নেহ আর মমতার পরশ বুলিয়ে হোটেল মালিক তার সন্তানদের পেট ভরে খাইয়ে তৃপ্তির ঢেকুর তোলেন।

দেশের প্রেসিডেন্ট, প্রধানমন্ত্রী থেকে শুরু করে যত নামি দামি আর বিশ্ব বরেন্য মানুষ রয়েছেন তারাও এই হোটেলে ভাত খেয়ে আজ নিজেরাই হোটেল মালিক সেজেছেন। আমার বাবা এই ভাঙ্গাচোরা হোটেলে তার সন্তানদের কত নামি দামী আইটেমের খাবার খাওয়াছেন। আজও সেই হোটেলে ফ্রি খাবার খাচ্ছি। সবচে মজার বিষয় কি জানেন? বিখ্যাত এই হোটলটি মালিক সব পুরুষরাই পৈত্রিক সুত্রে পেয়ে থাকেন। যে হোটেলটি অতি বরকতময় আর নীল সবুজ ভালাবাসা দিয়ে ঘেরা।
(ফেসবুক থেকে। লেখক: ঝিনাইদহবাসী বিশিষ্ট সাংবাদিক) 
নিউজওয়ান২৪.কম/আরকে