ঢাকা, ১৩ জুন, ২০২৪
সর্বশেষ:

উদীয়মান বাংলাদেশ

অসম্পাদিত ডেস্ক

প্রকাশিত: ১৯:৪৭, ১৬ ফেব্রুয়ারি ২০২৩  

প্রতীকী ছবি

প্রতীকী ছবি


বাংলাদেশ দক্ষিণ এশিয়ায় অবস্থিত একটি দেশ যা উল্লেখযোগ্য অর্থনৈতিক ও সামাজিক পরিবর্তনের মধ্য দিয়ে যাচ্ছে। গত কয়েক দশকে দেশটি কৃষি, উৎপাদন এবং প্রযুক্তিসহ বিভিন্ন খাতে দুর্দান্ত অগ্রগতি করেছে। ফলস্বরূপ, বাংলাদেশ এই অঞ্চলের সবচেয়ে দ্রুত বর্ধনশীল অর্থনীতির একটি হিসাবে আবির্ভূত হয়েছে এবং বিশ্ব অর্থনীতিতে একটি প্রভাবশালী দেশ হতে প্রস্তুত।

বাংলাদেশের সবচেয়ে উল্লেখযোগ্য উন্নয়নগুলির মধ্যে একটি হল পদ্মা সেতু নির্মাণ, একটি বিশাল অবকাঠামো প্রকল্প যা দেশের অগ্রগতি এবং সংকল্পের প্রতীক হয়ে উঠেছে। পদ্মা সেতু বাংলাদেশের সর্ববৃহৎ সেতু এবং দেশের গ্রামীণ ও শহুরে এলাকায় সংযোগ স্থাপন, অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি বৃদ্ধি এবং দরিদ্রতা হ্রাসে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করবে বলে আশা করা হচ্ছে। সেতুটি নির্মাণের ফলে হাজার হাজার কর্মসংস্থান সৃষ্টি হয়েছে এবং স্থানীয় ব্যবসা ও শিল্পের বিকাশকে উৎসাহিত করেছে। পদ্মা সেতু বাংলাদেশের ইতিহাসে সবচেয়ে উচ্চাভিলাষী অবকাঠামো প্রকল্পগুলির মধ্যে একটি। ৬.১৫  কিলোমিটার দীর্ঘ সেতু, যা দেশের দীর্ঘতম, দেশের দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলকে বাংলাদেশের বাকি অংশের সাথে সংযুক্ত করে, যা দেশের দুটি প্রধান অর্থনৈতিক অঞ্চলের মধ্যে একটি গুরুত্বপূর্ণ সংযোগ তৈরি করে। এটি দেশের অর্থনীতিতে একটি উল্লেখযোগ্য প্রভাব ফেলবে, কারণ এটি পণ্য এবং মানুষের দ্রুত, আরও দক্ষ চলাচল, পরিবহন খরচ কমাতে এবং নতুন বাজার খুলতে সক্ষম করবে। সেতুটি দেশের দরিদ্রতা হ্রাসেও উল্লেখযোগ্য প্রভাব ফেলবে বলে আশা করা হচ্ছে।

দেশের পূর্বে বিচ্ছিন্ন অঞ্চলগুলিকে বাংলাদেশের বাকি অংশের সাথে সংযুক্ত করে সেতুটি নতুন অর্থনৈতিক সুযোগ উন্মোচন করবে, বিশেষ করে কৃষি ও মৎস্য খাতে। এটি এসব এলাকায় দরিদ্রতা হ্রাস করতে এবং বাংলাদেশের জনগণের সামগ্রিক জীবনযাত্রার মান উন্নয়নে সহায়তা করবে। অর্থনৈতিক ও সামাজিক সুবিধার পাশাপাশি পদ্মা সেতুর গুরুত্বপূর্ণ কৌশলগত সুবিধাও আছে। সেতুটি দেশের দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চল এবং বাংলাদেশের বৃহত্তম এবং সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ বন্দর চট্টগ্রাম বন্দরের মধ্যে একটি গুরুত্বপূর্ণ সংযোগ প্রদান করেছে। এটি দুই অঞ্চলের মধ্যে পণ্য ও মানুষের চলাচল সহজতর করতে সাহায্য করবে এবং দক্ষিণ এশিয়ার বাকি অংশ এবং তার বাইরেও দেশের সামগ্রিক সংযোগ উন্নত করবে। সামগ্রিকভাবে, পদ্মা সেতু বাংলাদেশের বৃহত্তর উন্নয়ন কৌশলের একটি চাবিকাঠি এবং এটি দেশের অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি এবং সামগ্রিক উন্নয়নে উল্লেখযোগ্য প্রভাব ফেলবে বলে আশা করা হচ্ছে। দেশের পূর্বে অবহেলিত এলাকায় পরিবহন সংযোগের উন্নতি এবং বিচ্ছিন্নতা হ্রাস করে, সেতুটি নতুন অর্থনৈতিক সুযোগ তৈরি করতে, দরিদ্রতা্যতা হ্রাস করতে এবং দেশের সামগ্রিক নিট আয় বৃদ্ধিতে সহায়তা করবে।

আরেকটি বড় অবকাঠামো প্রকল্প যা দেশের উন্নয়নে অবদান রেখেছে তা হলো কর্ণফুলী টানেল। কর্ণফুলী নদীর তলদেশে চলা এই টানেলটি বাংলাদেশের একমাত্র দীর্ঘতম টানেল এবং এটি দেশের দক্ষিণ-পূর্ব এবং উত্তর-পূর্ব অঞ্চলের মধ্যে একটি গুরুত্বপূর্ণ সংযোগ প্রদান করবে বলে আশা করা হচ্ছে। টানেলটি ভ্রমণের সময় হ্রাস করবে এবং স্বাস্থ্যসেবা এবং শিক্ষার মতো প্রয়োজনীয় পরিষেবাগুলিতে অ্যাক্সেস উন্নত করবে বলে আশা করা হচ্ছে। এটি ব্যবসার জন্য পণ্য পরিবহন এবং বাজারে পৌঁছানো সহজ করে এই অঞ্চলের অর্থনীতিতে একটি উৎসাহ প্রদান করবে। দেশের মধ্যে প্রথম এই ধরনের টানেলটি কর্ণফুলী নদীর তলদেশে নির্মিত হবে, যা চট্টগ্রাম শহরকে এর দক্ষিণ শহরতলী এবং পার্শ্ববর্তী জেলাগুলির সাথে সংযুক্ত করবে। একবার সম্পন্ন হলে, টানেলটি দেশের অর্থনীতি এবং পরিবহন ব্যবস্থায় উল্লেখযোগ্য প্রভাব ফেলবে বলে আশা করা হচ্ছে। কর্ণফুলী টানেলের অন্যতম প্রধান সুবিধা হলো এটি ভ্রমণের সময়কে ব্যাপকভাবে হ্রাস করবে এবং দেশের বিভিন্ন অঞ্চলের মধ্যে যোগাযোগ উন্নত করবে। বর্তমানে, কর্ণফুলী নদী পেরিয়ে যাতায়াত প্রায়ই ভারী যানবাহন এবং ফেরির জন্য দীর্ঘ অপেক্ষার সময় বাধাগ্রস্ত হয়। টানেলের মাধ্যমে, যাত্রীরা মাত্র কয়েক মিনিটের মধ্যে নদী পার হতে পারবে, যা পরিবহন খরচ অনেক কমিয়ে দেবে এবং গুরুত্বপূর্ণ অর্থনৈতিক কেন্দ্র ও বাজারে গমনাগমন উন্নত করবে। এর পরিবহন সুবিধার পাশাপাশি, কর্ণফুলী টানেলটি এই অঞ্চলের পরিবেশ এবং জীবনযাত্রার মানের উপরও উল্লেখযোগ্য প্রভাব ফেলবে বলে আশা করা হচ্ছে। ভারী যানবাহন এবং ফেরির জন্য দীর্ঘ অপেক্ষার সময়, কর্ণফুলী নদীর চারপাশের এলাকা উল্লেখযোগ্য বায়ু দূষণ এবং শব্দ দূষণের শিকার হয়েছে। ট্র্যাফিক এবং যানজট হ্রাস করে, টানেলটি এই অঞ্চলের বাসিন্দাদের জন্য স্থানীয় পরিবেশ এবং জীবনযাত্রার মানকে ব্যাপকভাবে উন্নত করবে বলে আশা করা হচ্ছে। সামগ্রিকভাবে, কর্ণফুলী টানেল একটি বড় অবকাঠামো প্রকল্প যা বাংলাদেশের অর্থনীতি ও পরিবহন ব্যবস্থায় উল্লেখযোগ্য প্রভাব ফেলবে বলে আশা করা হচ্ছে। ভ্রমণের সময় কমিয়ে এবং সংযোগের উন্নতির মাধ্যমে, টানেলটি অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি বাড়াতে, পরিবহন খরচ কমাতে এবং বাজারে বাণিজ্য বাড়াতে সাহায্য করবে। উপরন্তু, এই অঞ্চলের পরিবেশ এবং জীবনযাত্রার মানের উপর টানেলের ইতিবাচক প্রভাব আরেকটি গুরুত্বপূর্ণ সুবিধা যা বাংলাদেশের জনগণের সার্বিক কল্যাণকে উন্নত করবে।



এসব বড় অবকাঠামো প্রকল্পের পাশাপাশি বাংলাদেশ তার জ্বালানি খাতের উন্নতিতেও উল্লেখযোগ্য অগ্রগতি করেছে। সরকার তার বিদ্যুৎ উৎপাদন ক্ষমতা বাড়িয়েছে এবং তার বিতরণ নেটওয়ার্ক প্রসারিত করেছে, যার ফলে ব্যবসার জন্য বিদ্যুৎ এবং অন্যান্য প্রয়োজনীয় পরিষেবা অ্যাক্সেস করা সহজ হয়েছে। এটি আমদানি করা জ্বালানির উপর দেশের নির্ভরতা কমাতে সাহায্য করেছে এবং এর বিদ্যুৎ সরবরাহের নির্ভরযোগ্যতা উন্নত করেছে। জ্বালানি খাত বাংলাদেশের উন্নয়ন কৌশলের একটি গুরুত্বপূর্ণ উপাদান, এবং দেশটি সাম্প্রতিক বছরগুলিতে তার জ্বালানি অবকাঠামো উন্নত করতে এবং বিদ্যুতে তার অ্যাক্সেস প্রসারিত করতে উল্লেখযোগ্য অগ্রগতি করেছে। অতীতে, বাংলাদেশ দীর্ঘস্থায়ী বিদ্যুতের ঘাটতির মুখোমুখি হয়েছিল, যা অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি ও উন্নয়নকে ব্যাপকভাবে বাধাগ্রস্ত করেছিল। 

যাইহোক, সরকারি এবং বেসরকারি বিনিয়োগের সমন্বয়ের মাধ্যমে, দেশটি সাম্প্রতিক বছরগুলিতে তার জ্বালানি খাতে উল্লেখযোগ্যভাবে উন্নতি করতে সক্ষম হয়েছে। বাংলাদেশের জ্বালানি খাতের অন্যতম প্রধান অগ্রগতি হলো এর প্রাকৃতিক গ্যাস উৎপাদন ও বিতরণ নেটওয়ার্ক সম্প্রসারণ। দেশে উল্লেখযোগ্য প্রাকৃতিক গ্যাসের মজুদ রয়েছে এবং সারাদেশে গ্যাস উত্তোলন, প্রক্রিয়াকরণ এবং বিতরণের জন্য অবকাঠামোতে উল্লেখযোগ্য বিনিয়োগ করেছে। এটি দেশের জ্বালানি নিরাপত্তাকে ব্যাপকভাবে বৃদ্ধি করতে সাহায্য করেছে, সেইসাথে চিরাচরিত জীবাশ্ম জ্বালানির তুলনায় শক্তির একটি নির্ভরযোগ্য এবং আরও টেকসই উৎস প্রদান করেছে। প্রাকৃতিক গ্যাসের পাশাপাশি, বাংলাদেশ নবায়নযোগ্য শক্তি, বিশেষ করে সৌরশক্তিতেও প্রচুর বিনিয়োগ করেছে। ২০২৫ সালের মধ্যে ১০ গিগাওয়াট পর্যন্ত সৌর বিদ্যুতের ক্ষমতা স্থাপনের পরিকল্পনাসহ দেশটির বিশ্বের বৃহত্তম সৌরবিদ্যুৎ প্রোগ্রামগুলির মধ্যে একটি রয়েছে। এটি দেশের গ্রামীণ এবং প্রত্যন্ত অঞ্চলে বিদ্যুতের অ্যাক্সেসকে ব্যাপকভাবে প্রসারিত করতে সাহায্য করেছে, পাশাপাশি জীবাশ্ম জ্বালানীর উপর দেশের নির্ভরতা হ্রাস করা এবং এর কার্বন পদচিহ্ন হ্রাস করা। তদুপরি, বাংলাদেশ সরকার দেশের জ্বালানি খাতের সংস্কারের জন্য পদক্ষেপ নিয়েছে, যার মধ্যে এই খাতটির তত্ত্বাবধান এবং এর স্থায়িত্ব নিশ্চিত করার জন্য একটি নিয়ন্ত্রক কর্তৃপক্ষ প্রতিষ্ঠা করা। সরকার এ খাতে বেসরকারি বিনিয়োগকে উৎসাহিত করার জন্য নীতিও বাস্তবায়ন করেছে এবং আরও প্রতিযোগিতামূলক জ্বালানি বাজার তৈরি করতে কাজ করেছে।

বাংলাদেশের প্রযুক্তি খাতও দ্রুত বর্ধনশীল, এই খাতে সরকারের বিনিয়োগ এবং উদ্ভাবন ও উদ্যোক্তাদের প্রচারের দ্বারা চালিত। দেশটি আইটি আউটসোর্সিং এবং অফশোরিংয়ের একটি কেন্দ্রে পরিণত হয়েছে, এই খাতে ক্রমবর্ধমান সংখ্যক চাকরি প্রদান করে। এছাড়াও, সরকার প্রযুক্তি শিল্পের বিকাশের জন্য বেশ কয়েকটি উদ্যোগ প্রতিষ্ঠা করেছে, যার মধ্যে রয়েছে আইটি পার্ক তৈরি করা এবং স্টার্ট-আপগুলিকে তহবিল ও সহায়তার ব্যবস্থা করা।

বাংলাদেশের স্বাস্থ্যসেবা খাতেও সাম্প্রতিক বছরগুলোতে উল্লেখযোগ্য উন্নতি হয়েছে, সরকার এই খাতে উল্লেখযোগ্য বিনিয়োগ করেছে। নতুন হাসপাতাল এবং ক্লিনিক নির্মাণ এবং স্বাস্থ্যসেবা কর্মীদের প্রশিক্ষণ স্বাস্থ্যসেবা পরিষেবার অ্যাক্সেস উন্নত করেছে, বিশেষ করে গ্রামীণ এলাকায়, এবং দেশে রোগের বোঝা কমাতে সাহায্য করেছে। এছাড়াও, নতুন প্রযুক্তি গ্রহণ এবং স্বাস্থ্য বীমা কর্মসূচি বাস্তবায়নসহ স্বাস্থ্যসেবার মান উন্নয়নে সরকার বেশ কিছু পদক্ষেপ নিয়েছে।

সাম্প্রতিক বছরগুলোতে বাংলাদেশের শিক্ষা খাতেও বড় ধরনের সংস্কার হয়েছে, সরকার শিক্ষাকে অগ্রাধিকার দিচ্ছে। সরকার শিক্ষার সুযোগ বৃদ্ধি করেছে, বিশেষ করে সুবিধাবঞ্চিত জনগোষ্ঠীর মেয়েদের এবং শিশুদের জন্য, এবং শিক্ষক প্রশিক্ষণ এবং নতুন প্রযুক্তি গ্রহণের মাধ্যমে শিক্ষার মান উন্নত করেছে। ফলস্বরূপ, তালিকাভুক্তির হার বৃদ্ধি পেয়েছে, বিশেষ করে প্রাথমিক ও মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে, এবং দেশটি আরও শিক্ষিত এবং দক্ষ কর্মশক্তির ভিত্তি তৈরি করেছে।

অবশেষে, বাংলাদেশ দরিদ্রতায় হ্রাস এবং অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি বৃদ্ধিতে উল্লেখযোগ্য অগ্রগতি করেছে। দেশটি সাম্প্রতিক বছরগুলিতে দারুণ অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি অর্জন করেছে, গত এক দশকে এর জিডিপি গড়ে ৬.৫% হারে বৃদ্ধি পেয়েছে। শক্তিশালী অভ্যন্তরীণ চাহিদা, বর্ধিত রপ্তানি এবং সরাসরি বিদেশী বিনিয়োগ সহ বিভিন্ন কারণের সংমিশ্রণ দ্বারা এই বৃদ্ধি চালিত হয়েছে। বিশ্বব্যাংকের মতে, কোভিড-১৯ মহামারি সত্ত্বেও ২০২০ সালে বাংলাদেশের জিডিপি প্রবৃদ্ধি ছিল ৩.৮%। এই বৃদ্ধি মূলত একটি স্থিতিস্থাপক কৃষি খাতের দ্বারা চালিত হয়েছে, সেইসাথে অবকাঠামো এবং সামাজিক পরিষেবাগুলিতে জনসাধারণের বিনিয়োগ বৃদ্ধি পেয়েছে। এছাড়াও, দেশের তৈরি পোশাক খাত ভালো পারফরম্যান্স অব্যাহত রেখেছে, যা দেশের রপ্তানির সিংহভাগ অংশ দখল করে আছে।

যাইহোক, এই অগ্রগতি সত্ত্বেও, এখনও অনেক চ্যালেঞ্জ রয়েছে যা বাংলাদেশকে তার অগ্রগতি অব্যাহত রাখতে অবশ্যই অতিক্রম করতে হবে। দুর্নীতি এবং রাজনৈতিক অস্থিতিশীলতা এবং উল্লেখযোগ্য কিছু বিষয় রয়ে গেছে, এবং দেশ এখনও অনেক পরিবেশগত এবং সামাজিক চ্যালেঞ্জের মুখোমুখি, যেমন জলবায়ু পরিবর্তন, প্রাকৃতিক দুর্যোগ এবং ব্যাপক দরিদ্রতা্য। এই চ্যালেঞ্জ সত্ত্বেও, বাংলাদেশের শাসন এবং জনগণ এই বাধাগুলি অতিক্রম করতে এবং নিজেদের এবং তাদের সন্তানদের জন্য একটি উন্নত ভবিষ্যত গড়তে প্রতিশ্রুতিবদ্ধ।

বাংলাদেশের সাফল্যে অবদান রাখার অন্যতম প্রধান কারণ হল এর গতিশীল এবং উদ্যোক্তা জনসংখ্যা। দেশটি ক্রমবর্ধমান সংখ্যক তরুণ, উচ্চ-শিক্ষিত এবং উচ্চাকাঙ্ক্ষী ব্যক্তিদের আবাসস্থল যারা তাদের দেশের উন্নয়নে অবদান রাখতে আগ্রহী। এই মানব পুঁজি একটি মূল্যবান সম্পদ যা বাংলাদেশ তার অগ্রগতি অব্যাহত রাখতে এবং একটি উজ্জ্বল ভবিষ্যত গড়তে কাজে লাগাতে পারে।

আরেকটি কারণ যা বাংলাদেশকে একটি গতিশীল ও সমৃদ্ধ জাতি হিসেবে আবির্ভূত হতে সাহায্য করেছে তা হলো এর সমৃদ্ধ সাংস্কৃতিক ঐতিহ্য। দেশটি একটি সমৃদ্ধ ইতিহাস এবং ঐতিহ্যে নিমজ্জিত যা এর শিল্প, সাহিত্য এবং সঙ্গীতে প্রতিফলিত হয়। এই সাংস্কৃতিক ঐতিহ্য বাংলাদেশের জনগণের জন্য গর্বের উৎস এবং জাতীয় পরিচয় ও ঐক্যের দৃঢ় অনুভূতি গড়ে তুলতে সাহায্য করেছে।

উপসংহারে, বাংলাদেশ এমন একটি দেশ যেটি উল্লেখযোগ্য পরিবর্তনের মধ্য দিয়ে যাচ্ছে এবং বিভিন্ন সেক্টরে দুর্দান্ত অগ্রগতি করছে। পদ্মা সেতু এবং কর্ণফুলী টানেলের মতো বড় অবকাঠামো প্রকল্পের নির্মাণ দেশের অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি বৃদ্ধিতে এবং দরিদ্রতা হ্রাসে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেছে এবং করবে। এছাড়াও, দেশটি তার জ্বালানি খাত, প্রযুক্তি খাত, স্বাস্থ্যসেবা খাত, শিক্ষা খাত এবং দরিদ্রতা হ্রাসে উল্লেখযোগ্য অগ্রগতি করেছে। এই সমস্ত উন্নয়ন একটি আরও সমৃদ্ধ, স্থিতিশীল এবং অর্থনৈতিকভাবে প্রাণবন্ত বাংলাদেশে অবদান রাখছে। চ্যালেঞ্জের মুখোমুখি হওয়া সত্ত্বেও, বাংলাদেশ একটি সমৃদ্ধ ইতিহাস, একটি গতিশীল এবং উদ্যোক্তা জনসংখ্যা এবং অগ্রগতি ও উন্নয়নের প্রতিশ্রুতি সহ একটি জাতি। দেশটি ক্রমাগত বৃদ্ধি এবং উন্নতির সাথে সাথে এটি দক্ষিণ এশিয়া এবং বিশ্বের ভবিষ্যত গঠনে ক্রমবর্ধমান গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করবে।



- এরিক মোর্শেদ
সদস্য, অর্থ ও পরিকল্পনা উপ কমিটি, বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ
সহকারী অধ্যাপক, ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি অব স্কলারস। 

নিউজওয়ান২৪.কম/আরএডব্লিউ

আরও পড়ুন
অসম্পাদিত বিভাগের সর্বাধিক পঠিত