ঢাকা, ১২ আগস্ট, ২০২০
সর্বশেষ:
সেহরি ও ইফতারের সময় সূচি : ঢাকায় প্রথম রোজার সেহরির শেষ সময় রাত ৪টা ৫ মিনিটে আর ইফতার হবে সন্ধ্যা ৬টা ২৮ মিনিটে। আইইডিসিআর এর করোনা কন্ট্রোল রুম (০১৭০০৭০৫৭৩৭) অথবা হটলাইন নম্বরে (০১৯৩৭১১০০১১, ০১৯৩৭০০০০১১, ০১৯২৭৭১১৭৮৪, ০১৯২৭৭১১৭৮৫, ০১৯৪৪৩৩৩২২২, ০১৫৫০০৬৪৯০১–০৫) যোগাযোগ করা যাবে। এ ছাড়া করোনাসংক্রান্ত তথ্য জানতে বা সহযোগিতা পেতে স্বাস্থ্য বাতায়ন ১৬২৬৩ এবং ৩৩৩ নম্বরে ফোন করা যাবে। অনলাইনে করোনা নিয়ে যোগাযোগ করতে আইইডিসিআরের ই-মেইল [email protected] এবং ফেসবুক পেজে (Iedcr,COVID19 Control Room) যোগাযোগ করা যাবে। জরুরি প্রয়োজনে কল করুন- ৯৯৯

টাইগারদের স্মরণীয় জয়

স্পোর্টস ডেস্ক

প্রকাশিত: ০৮:৪৫, ৪ নভেম্বর ২০১৯  

ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

প্রথমবারের মতো ক্রিকেটের সংক্ষিপ্ত ফরম্যাটে ভারতকে হারালো টাইগাররা। একইসঙ্গে হাজারতম আন্তর্জাতিক টি-টোয়েন্টি ম্যাচ জিতে উপলক্ষটা স্মরণীয় করে রাখলো রিয়াদের দল।

তিন ম্যাচ সিরিজের প্রথম টি-টোয়েন্টিতে  এই জয়ে  ভারতকে ৭ উইকেটে হারিয়েছে বাংলাদেশ। 

টস হেরে আগে ব্যাট করতে নেমে নির্ধারিত ২০ ওভারে ৬ উইকেটে ১৪৮ রান তোলে স্বাগতিকরা। জবাবে মুশফিক-সৌম্যের বড় জুটিতে জয়ের বন্দরে পৌঁছায় বাংলাদেশ।

রোববার দিল্লির অরুণ জেটলি স্টেডিয়ামে ভারতের করা রান তাড়া করতে নামেন লিটন দাস ও নবাগত নাঈম শেখ। দিপক চাহারের বলে প্রথম ওভারেই লোকেশ রাহুলের হাতে ক্যাচ দিয়ে ফেরেন লিটন (৭)। এরপর দলের হাল ধরেন সৌম্য ও নাঈম। তাদের ব্যাটে ভর করে অর্ধশত পার করে বাংলাদেশ।

চাহালের বলে ২৬ করে নাইম ফিরলে ক্রিজে আসেন মুশফিক। সৌম্যের সঙ্গে গড়েন ৬০ রানের জুটি। খলিল আহমেদের বলে ৩৫ বলে ৩৯ রানের ইনিংস খেলে বোল্ড হন সৌম্য সরকার।

শেষদিকে রিয়াদ-মুশির দারুণ ব্যাটিংয়ে জয়ের বন্দরে পৌঁছে যায় বাংলাদেশ। মুশি ও রিয়াদ অপরাজিত থাকেন যথাক্রমে ৬০ ও ১৫ রানে।

এর আগে দিল্লির অরুন জেটলি স্টেডিয়ামে টস জিতে ভারতকে ব্যাটিংয়ে আমন্ত্রণ জানান টাইগার অধিনায়ক মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ। ব্যাট করতে নেমে প্রথম ওভারেই অধিনায়ক রোহিত শর্মাকে হারায় স্বাগতিকরা। ওভারের শেষ বলে রোহিতকে এলবিডব্লিউয়ের ফাঁদে ফেলেন টাইগার পেসার শফিউল ইসলাম। যদিও রিভিউ নিয়েছিলেন ভারত কাপ্তান। কিন্তু তাতে রক্ষা হয়নি। ৫ বলে ৯ রান করেন রোহিত শর্মা।

সেখান থেকে শিখর ধাওয়ান ও লোকেশ রাহুলের ব্যাটে ঘুরে দাঁড়ানোর চেষ্টা করছিল ভারত। ৬ ওভার শেষে ৩৫ রান তোলে তারা। তবে বোলিংয়ে এসেই ভারতীয় শিবিরে হামলা চালান আমিনুল ইসলাম বিপ্লব। ক্রমেই বিপজ্জনক হয়ে ওঠা লোকেশ রাহুলকে নিজের দ্বিতীয় বলেই ফেরান তিনি। মাহমুদউল্লাহ রিয়াদের হাতে ধরা পড়া রাহুল ১৭ বলে ১৫ রান করেন।

সেখান থেকে শ্রেয়াস আইয়ারের ক্যামিওতে বড় সংগ্রহের স্বপ্ন দেখতে থাকে স্বাগতিকরা। কিন্তু তখনই আবারও আঘাত হানেন বিপ্লব। দলীয় ৭০ রানের মাথায় সাজঘরে ফেরেন ১৩ বলে ২২ রান করা শ্রেয়াস।

রিশাভ পান্ট ও ধাওয়ান মিলে জুটি গরে তোলার চেষ্টা করেন। তবে ভুল বুঝাবুঝিতে রান আউট হন ধাওয়ান। রিয়াদ-মুশির দারুণ বোঝাপড়ায় আউট হওয়ার আগে ৪২ বলে ৪১ রান করেন ধাওয়ান। অভিষিক্ত দ্যুবেও টিকতে পারেননি বেশিক্ষণ। শুরু থেকেই দুর্দান্ত বল করা আফিফের বলে তাকেই ক্যাচ দেন এ ব্যাটসম্যান। এর আগে ৪ বলে ১ রান করেন তিনি।

এসময় ভারতকে আশা দেখাচ্ছিলেন রিশাভ পান্ট। কিন্তু দলীয় ১২০ রানের মাথায় শফিউল ইসলামের বলে উড়িয়ে মারতে গিয়ে সীমানায় মোহাম্মদ নাঈমের হাতে ধরা পড়েন রিশাভ। ২৬ বলে ২৭ রান করেন তিনি।

শেষের দিকে ক্রুনাল পান্ডিয়ার ৮ বলে ১৫ ও ওয়াশিংটন সুন্দরের ৫ বলে ১৪ রানের ক্যামিওতে ৬ উইকেটে  ১৪৮ রান তোলে স্বাগতিকরা। শেষ ১০ বলে ২৮ রান তোলেন ক্রুনাল ও ওয়াশিংটন। বাংলাদেশের হয়ে দুটি করে উইকেট নেন শফিউল ইসলাম ও আমিনুল ইসলাম বিপ্লব।

সংক্ষিপ্ত স্কোর:
ভারত: ১৪৮/৬ (২০ ওভার)
ধাওয়ান ৪২, পান্ট ২৭
বিপ্লব ২২/২, শফিউল ৩৬/২

বাংলাদেশ: ১৫৪/৩ (১৯.৩ ওভার)
মুশফিক ৬০*, সৌম্য ৩৯
চাহাল ২৪/১, চাহার ২৪/১

ফল: বাংলাদেশ ৭ উইকেটে জয়ী
ম্যান অফ দা ম্যাচ: মুশফিকুর রহিম
সিরিজ: বাংলাদেশ ১-০ ব্যবধানে এগিয়ে

নিউজওয়ান২৪.কম/এমজেড