ঢাকা, ১৩ জুলাই, ২০২০
সর্বশেষ:
সেহরি ও ইফতারের সময় সূচি : ঢাকায় প্রথম রোজার সেহরির শেষ সময় রাত ৪টা ৫ মিনিটে আর ইফতার হবে সন্ধ্যা ৬টা ২৮ মিনিটে। আইইডিসিআর এর করোনা কন্ট্রোল রুম (০১৭০০৭০৫৭৩৭) অথবা হটলাইন নম্বরে (০১৯৩৭১১০০১১, ০১৯৩৭০০০০১১, ০১৯২৭৭১১৭৮৪, ০১৯২৭৭১১৭৮৫, ০১৯৪৪৩৩৩২২২, ০১৫৫০০৬৪৯০১–০৫) যোগাযোগ করা যাবে। এ ছাড়া করোনাসংক্রান্ত তথ্য জানতে বা সহযোগিতা পেতে স্বাস্থ্য বাতায়ন ১৬২৬৩ এবং ৩৩৩ নম্বরে ফোন করা যাবে। অনলাইনে করোনা নিয়ে যোগাযোগ করতে আইইডিসিআরের ই-মেইল [email protected] এবং ফেসবুক পেজে (Iedcr,COVID19 Control Room) যোগাযোগ করা যাবে। জরুরি প্রয়োজনে কল করুন- ৯৯৯

চরম হতাশায় আল্লাহর প্রশান্তির বাণী

ধর্ম ডেস্ক

প্রকাশিত: ০৯:১৪, ২৫ সেপ্টেম্বর ২০১৯  

ফাইল ফটো

ফাইল ফটো

সুখে-দুঃখে, অভাব-অনটনে, বিপদ-মুসিবতে এবং চরম হতাশার সময় মানুষ তার উভয় হাত ও চোখ মহান রাব্বুল আলামিন আল্লাহ তায়ালার দিকেই প্রসারিত করে।

আর এ সব আবেদনের আলোকেই সমস্যার সমাধানে আল্লাহ তায়ালা প্রতিনিয়ত কাজে ব্যস্ত থাকেন। 

আরো পড়ুন>>> পৃথিবীর সবচেয়ে ‘ছোট’ মসজিদ

মহান রাব্বুল আলামিন আল্লাহ তায়ালা বলেন-

‘আসমান এবং জমিনে যা কিছু (যত সৃষ্টি) আছে সবাই তার কাছে সাহায্য প্রার্থনা করে আর তিনি প্রতিটি মুহূর্তেই (এসব কাজ সম্পাদনে) কর্মে ব্যস্ত।’ (সূরা আর-রহমান : আয়াত ২৯)

মানুষ যখনই কোনো বিপদ-আপদে পতিত হয় তখনই আশা ও ভয়ের মাধ্যমে আল্লাহকে ডাকে। হৃদয়ের গভীর থেকে একান্তে মধুর নামে আল্লাহকে ডাকে।

বান্দা যখনই হৃদয়ের গভীর থেকে মধুর নামে আল্লাহকে ডাকে, আল্লাহ তখনই বান্দার অন্তরে প্রশান্তি দান করেন। অস্থিরতা দূর করে দেন। স্নায়ু ও বোধ শক্তি বৃদ্ধি করে দেন। আল্লাহ তায়ালা বলেন-

‘আসমান-জমিন এবং উভয়ের মধ্যে যা কিছু আছে তিনি (আল্লাহ) সবারই প্রতিপালক। সুতরাং তুমি তাঁর ইবাদত কর এবং তার ইবাদতে সবর অবলম্বন কর। তুমি কি তার সম বা অনুরূপ কাউকে চেন বা জান?’

আল্লাহ তায়ালা এ আয়াতে মানুষকে প্রশ্ন করেন, মানুষকে ক্ষমা প্রদানে, নিরাপরাধ ব্যক্তির সমস্যার সমাধানে, অসহায় মানুষকে আশ্রয়দানে এমন কেউ আছে কী? যাকে তোমরা চেন বা জান?

এ প্রশ্নের উত্তরে, মানুষ যে দিকেই তাকাবে, সে দিক থেকেই চোখ ফিরে আসবে। কেননা আল্লাহ ছাড়া দ্বিতীয় কোনো উপাস্য নেই। যিনি মানুষের সব কিছুর প্রতিবিধান করতে পারে। তাইতো আল্লাহ তায়ালা বলেন-

‘তার মতো (সমতুল্য/উপমা দেয়ার) কেউ নেই এবং তিনিই সবকিছু শোনেন এবং সবকিছু দেখেন।’ (সূরা শুরা : আয়াত ১১)

সুতরাং যিনি ব্যতিত বান্দার কোনো উপায় নেই। নাজাতের কোনো পথ নেই, তার দিকেই ফিরে যাবে মুমিন। তার কাছে প্রার্থনা বা আশ্রয় চাইবে মুমিন। দুনিয়া ও পরকালের সব সমস্যার সমাধানে আশা ও ভয় মিশ্রিত হৃদয়ে মুমিন বান্দার আবেদন হবে এমন-

رَبَّنَا آتِنَا فِي الدُّنْيَا حَسَنَةً وَفِي الْآخِرَةِ حَسَنَةً وَقِنَا عَذَابَ النَّارِوَاَدْخِلْنَا الْجَنَّةَ مَعَ الْاَبْرَارِ يَاعَزِيْزُ يَاغَفَّارُ يَا اَرْحَمَ الرَّحِمِيْن

উচ্চারণ : রাব্বানা আতিনা ফিদ্দুনইয়া হাসানাতও ওয়া ফিল আখিরাতে হাসানাতাও ওয়া ক্বিনা আজাবান নার।’ ওয়া আদখিলনাল জান্নাতা মাআল আবরার। ইয়া আযিযু ইয়া গাফ্ফার, ইয়া আরহামার রাহিমিন।’

অর্থ : ‘হে আমাদের প্রভু, আমাদের দুনিয়া ও আখেরাতের কল্যাণ দান করুন। জাহান্নামের আজাব থেকে মুক্ত রাখুন। আপনার প্রিয় বান্দাদের সঙ্গে জান্নাত দান করুন। হে পরাক্রমশালী, হে ক্ষমাকারী, হে শ্রেষ্ঠ দয়ালীশীলদের দয়াশীল।’

আল্লাহ তায়ালা মুসলিম উম্মাহকে দুনিয়া ও পরকালের সব বিষয়ে আল্লাহর সাহায্য ও রহমত লাভের তাওফিক দান করুন। আল্লাহর দয়া ও ক্ষমা লাভে কোরআনের উপদেশের আলোকে জীবন সাজানোর তাওফিক দান করুন। আল্লাহুম্মা আমিন।

নিউজওয়ান২৪.কম/এমজেড