ঢাকা, ১০ এপ্রিল, ২০২০
সর্বশেষ:
আইইডিসিআর এর করোনা কন্ট্রোল রুম (০১৭০০৭০৫৭৩৭) অথবা হটলাইন নম্বরে (০১৯৩৭১১০০১১, ০১৯৩৭০০০০১১, ০১৯২৭৭১১৭৮৪, ০১৯২৭৭১১৭৮৫, ০১৯৪৪৩৩৩২২২, ০১৫৫০০৬৪৯০১–০৫) যোগাযোগ করা যাবে। এ ছাড়া করোনাসংক্রান্ত তথ্য জানতে বা সহযোগিতা পেতে স্বাস্থ্য বাতায়ন ১৬২৬৩ এবং ৩৩৩ নম্বরে ফোন করা যাবে। অনলাইনে করোনা নিয়ে যোগাযোগ করতে আইইডিসিআরের ই-মেইল [email protected] এবং ফেসবুক পেজে (Iedcr,COVID19 Control Room) যোগাযোগ করা যাবে। জরুরি প্রয়োজনে কল করুন- ৯৯৯

সৌদি আরবে ১৫ মিনিটে জুমার নামাজ সম্পন্নের নির্দেশ!

ধর্ম ডেস্ক

প্রকাশিত: ০৮:২৭, ১৩ মার্চ ২০২০  

আজানের ঠিক ১০ মিনিট পর জুমার নামাজের ইক্বামাত দেয়া হবে। ইক্বামাতের পর নামাজ শুরু হলে তা বাকি সময়ে সম্পন্ন করতে হবে।-ছবি: সংগৃহীত

আজানের ঠিক ১০ মিনিট পর জুমার নামাজের ইক্বামাত দেয়া হবে। ইক্বামাতের পর নামাজ শুরু হলে তা বাকি সময়ে সম্পন্ন করতে হবে।-ছবি: সংগৃহীত


প্রাণঘাতী নভেল করোনাভাইরাস তথা কোভিড-১৯-কে মহামারী ঘোষণা করেছে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (ডাব্লিউএইচও)।

এদিকে করোনাভাইরাসের কারণে সৌদি আরবের সব মসজিদে ১৫ মিনিটের সংক্ষিপ্ত সময়ের মধ্যে জুমার নামাজ সম্পন্ন করার দিকনির্দেশনা দিয়েছে দেশটির ইসলামিক বিষয়ক মন্ত্রণালয়।

সৌদি আরবের ইসলামিক বিষয়ক মন্ত্রী ড. আব্দুল লতিফ আল-শায়খ বলেন, ‘সৌদি আরবকে প্রাণঘাতী করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাব থেকে সুরক্ষা দিতে কিছু অস্থায়ী নিরাপত্তা ও সতর্কতামূলক ব্যবস্থা গ্রহণ করেছে মন্ত্রণালয়। নামাজের সময়কে সংক্ষিপ্তকরণ করাও অস্থায়ী পদক্ষেপেরই একটি অংশ।

জুমার নামাজের আজান, ইক্বামাত ও নামাজের সময়ও নির্ধারণ করেছে মন্ত্রণালয়। জানা যায়, জুমার নামাজের আজান দেয়ার পর ১০ মিনিট অপেক্ষা করা হবে। এ সময়ে চলবে বয়ান ও খুতবা।

আজানের ঠিক ১০ মিনিট পর জুমার নামাজের ইক্বামাত দেয়া হবে। ইক্বামাতের পর নামাজ শুরু হলে তা বাকি সময়ে সম্পন্ন করতে হবে।

ইসলামিক বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের নির্দেশে মক্কার মসজিদে হারাম এবং মদিনার মসজিদে নববীসহ সৌদি আরবের সব মসজিদেই ১৫ মিনিটে জুমার নামাজ আদায়ের এ নির্দেশনা বলবৎ থাকবে।

ইমামদের উদ্দেশ্যে ইসলামিক বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের এ নির্দেশনা সোমবার মন্ত্রণালয়ের টুইটার পেজে প্রকাশ করা হয়। টুইট বার্তায় সব মসজিদের ইমামদের এ সময়ের মধ্যে নামাজ আদায় সম্পন্ন করার কথা বলা হয়। কোনোভাবেই যেন এ সময়ের বাইরে অতিরক্তি সময় ব্যয় করা না হয় সে দিকেও সতর্কতার সঙ্গে লক্ষ্য রাখতে বলা হয়েছে।

উল্লেখ্য, নফল রোজা পালনকারীদের জন্য মসজিদে ইফতার ব্যবস্থাপনা ও সরবরাহ বন্ধের নির্দেশ দিয়েছে মন্ত্রণালয়। যে সব স্থানে নামাজ পড়া হয় সেসব স্থানে ইফতার বন্ধ রাখা এবং সেখান থেকে পানির গ্লাস ও ইফতারের উচ্ছিষ্টগুলো অপসারণেরও নির্দেশ দেয়া হয়।

নিউজওযান২৪.কম/এমজেড