ঢাকা, ১০ এপ্রিল, ২০২০
সর্বশেষ:
আইইডিসিআর এর করোনা কন্ট্রোল রুম (০১৭০০৭০৫৭৩৭) অথবা হটলাইন নম্বরে (০১৯৩৭১১০০১১, ০১৯৩৭০০০০১১, ০১৯২৭৭১১৭৮৪, ০১৯২৭৭১১৭৮৫, ০১৯৪৪৩৩৩২২২, ০১৫৫০০৬৪৯০১–০৫) যোগাযোগ করা যাবে। এ ছাড়া করোনাসংক্রান্ত তথ্য জানতে বা সহযোগিতা পেতে স্বাস্থ্য বাতায়ন ১৬২৬৩ এবং ৩৩৩ নম্বরে ফোন করা যাবে। অনলাইনে করোনা নিয়ে যোগাযোগ করতে আইইডিসিআরের ই-মেইল [email protected] এবং ফেসবুক পেজে (Iedcr,COVID19 Control Room) যোগাযোগ করা যাবে। জরুরি প্রয়োজনে কল করুন- ৯৯৯

রেকর্ডময় ইনিংসের নায়ক তামিম-লিটন

খেলা ডেস্ক

প্রকাশিত: ০০:২৬, ৭ মার্চ ২০২০  

তামিম ইকবাল ও লিটন দাস-ছবি: সংগৃহীত

তামিম ইকবাল ও লিটন দাস-ছবি: সংগৃহীত


বাংলাদেশের ক্ষেত্রে এমন ইনিংস সত্যিই বিরল। যেমন দেখালেন তামিম-লিটন জুটি। তো চলুন জেনে নিই বিরল ইনিংটির আদ্যোপান্ত।

প্রতি বার ব্যাট হাতে নামার সময় যে কোনো দলের ওপেনারদের লক্ষ্য থাকে ইনিংস যতটা বড় করা যায়। তবে এক ইনিংসে একই সঙ্গে দুই ওপেনার দীর্ঘসময় রাজত্ব করছেন, এমনটা সহসা দেখা যায় না।

তবে আজকের দিনটি ছিল অন্য দিনের চেয়ে আলাদা। নিজেদের ক্রিকেট ইতিহাসেই এ পর্যন্ত সব মিলিয়ে দেড়শ পেরোনো জুটি আছে ১৭টি। সেখানে অনবদ্য ব্যাটিংয়ে ওপেনিংয়ে অনেক রেকর্ডে নাম লিখিয়েছেন লিটন-তামিম। একনজরে দেখে নেয়া যাক সেসব রেকর্ডগুলো-

লিটন-তামিমের এই জুটি বাংলাদেশের ওয়ানডে ইতিহাসে সর্বোচ্চ রানের ওপেনিং জুটি। এর আগে প্রথম উইকেটে সর্বোচ্চ ১৭০ রানের জুটি গড়েছিলেন শাহরিয়ার হোসেন ও মেহরাব হোসেন। সেটিও ১৯৯৯ সালের ঘটনা! 

এছাড়া দেশের ইতিহাসে যে কোনো উইকেটে সর্বোচ্চ রানের জুটিও গড়েছেন দুজন। ২০১৭ সালে চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফিতে পঞ্চম উইকেটে সাকিব-মাহমুদউল্লাহর গড়া ২২৪ রানের জুটি ভেঙেছেন তারা।

সর্বকালের সেরা ওপেনিং জুটির তালিকায় তৃতীয় স্থানে নাম লিখিয়েছেন লিটন ও তামিম। আর অল্প কিছু রান করতে পারলেই দ্বিতীয় সর্বোচ্চ ওপেনিং জুটির রেকর্ড গড়ে ফেলতেন তারা।  ওপেনিংয়ে সর্বোচ্চ রানের জুটি ওয়েস্ট ইন্ডিজের শেই হোপ এবং ক্যাম্পবেলের। আয়ারল্যান্ডের বিপক্ষে তারা দু’জন তুলেছিলেন ৩৬৫ রান। দ্বিতীয় অবস্থানে আছে জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে ইমাম উল হক ও ফখর জামানের ৩০৪ রান।  তবে লিটন-তামিম ভেঙেছেন জয়সুরিয়া-থারাঙ্গা, ওয়ার্নার-হেডের মতো ক্রিকেটারদের রেকর্ড। 

নিজেদের ওয়ানডে ইতিহাসে এই নিয়ে মাত্র চতুর্থবারের মতো একই ইনিংসে দুই ব্যাটসম্যানের সেঞ্চুরি দেখল বাংলাদেশ। ২০১৫ সালে পাকিস্তানের বিপক্ষে তামিম (১৩২) এবং মুশফিক (১০৬) প্রথমবারের মতো জোড়া সেঞ্চুরি করেন। ২০১৭ সালে নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে সাকিব (১১৪) এবং মাহমুদউল্লাহ (১০২) একই ইনিংসে সেঞ্চুরি করেন।  সবশেষ ২০১৮ সালে জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে ইমরুল কায়েস (১১৫) এবং সৌম্য সরকার (১১৭) জোড়া সেঞ্চুরির এই কীর্তি গড়েন। এবার তামিম (১২৮) এবং লিটন দাস (১৭৬) নিজেদের নাম তুললেন তাদের পাশে।

নিউজওয়ান২৪.কম/এমজেড