ঢাকা, ১৭ নভেম্বর, ২০১৯
সর্বশেষ:
জরুরি প্রয়োজনে কল করুন- ৯৯৯ আওয়ামী লীগের জাতীয় সম্মেলন ডিসেম্বরে হেল্পলাইন ১৬২৬৩ এ কল করলেই ডাক্তারের পরামর্শ

মানুষের উপকারে ‘জ্বীন’

ধর্ম ডেস্ক

প্রকাশিত: ১১:৪৩, ৬ সেপ্টেম্বর ২০১৯  

প্রতীকী ছবি

প্রতীকী ছবি

জ্বীন নিয়ে আমাদের সমাজে অনেক কথা প্রচলিত আছে। জ্বীন কী আমাদের উপকার করতে পারে? 

হ্যাঁ! জ্বীনকে আপনি চাইলে নিজের কাজে ব্যবহার করতে পারেন।

যেমন মানুষকে আপনি সাহায্যকারী বা শ্রমিক হিসেবে কাজে লাগাতে পারেন, তেমনি জ্বীনকেও আপনি শ্রমিক হিসেবে কাজ করাতে পারেন। কাজ করিয়ে আপনি তার পাওনা দিয়ে দেবেন। এটি জায়েজ আছে।

হজরত সোলায়মান (আ.) জ্বীনদের নিয়ে বাহিনী তৈরি করেছিলেন এবং তাদের দিয়ে নির্মাণকাজ করিয়েছেন। সুতরাং জ্বীনদের সাহায্য নেয়া নাজায়েজ নয়। তবে এটি বৈধ প্রক্রিয়ায় হতে হবে। জ্বীনকে দিয়ে হারাম কাজ করা যাবে না, আবার জিনের কোনো শর্তও মানা যাবে না।

জ্বীন শব্দের অর্থ ও পরিচিতি: জ্বীনজাতি মানুষের থেকে আলাদ এক সৃষ্টি। জ্বীন শব্দের অর্থ: গুপ্ত, অদৃশ্য, লুক্কায়িত, আবৃত ইত্যাদি। জিন্নি একবচন আর জ্বীন হচ্ছে বহুবচন।

জ্বীন কিসের তৈরী: পবিত্র কোরআনুল কারীমে আল্লাহ সুবহানাহু তায়ালা বলেন, ‘আমি আদমের আগে জ্বীনকে সৃষ্টি করেছি ‘লু’এর আগুন (অর্থাৎ ধোয়াবিহীন আগুনের শিখা) হতে। (সূরাহ আল-হিজর: আয়াত: ২৭) (সূরা আর-রহমান: আয়াত ১৫) (সূরাহ আল-আ‘রাফ: আয়াত ১২)

রাসূলুল্লাহ (সা.) বলেছেন: ফেরেশতাদের সৃষ্টি করা হয়েছে অনুপম জ্যোতি (নূর) দিয়ে, জ্বীনদের সৃষ্টি করা হয়েছে (মিম মা-রিজিম মিন নার) ধোয়াবিহীন আগুনের শিখা দিয়ে এবং আদম (আ.)-কে সৃষ্টি করা হয়েছে তাই দিয়ে যার কথা (কোরআনুল কারীমে) তোমাদের বলা হয়েছে (অর্থাৎ মাটি)। (সহীহ মুসলিম; মিশকাতুল মাসাবিহ হা/৫৭০১)

জ্বীন জাতিকে কখন সৃষ্টি করা হয়েছে: এতে কোনো সন্দেহ নেই যে, জ্বীন জাতিকে মানুষের পূর্বেই সৃষ্টি করা হয়েছে। মহান আল্লাহ বলেন, ‘নিশ্চয়ই আমি মানুষকে সৃষ্টি করেছি কালো পচা শুষ্ক ঠনঠনে মাটি হতে। আর এর পূর্বে জ্বীনকে সৃষ্টি করেছি ধোয়াবিহীন আগুনের শিখা হতে।’ (সূরা হিজর, আয়াত ২৬-২৭)

নিউজওয়ান২৪.কম/এমজেড