ঢাকা, ১২ ডিসেম্বর, ২০১৯
সর্বশেষ:
জরুরি প্রয়োজনে কল করুন- ৯৯৯

মহানগর আওয়ামী লীগের নেতা নির্বাচন কাল 

নিউজ ডেস্ক

প্রকাশিত: ২৩:০৬, ২৯ নভেম্বর ২০১৯  

ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

ঢাকা মহানগর আওয়ামী লীগের সম্মেলনের সব প্রস্তুতি শেষ হয়েছে। শনিবার রাজধানীর সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে এ সম্মেলনে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থাকবেন আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনা।

এর মাধ্যমে মহানগর আওয়ামী লীগের নতুন নেতৃত্ব নির্বাচন করা হবে।

আওয়ামী লীগের দলীয় প্রতীক নৌকার আদলে তৈরি করা হয়েছে মঞ্চ। উত্তর ও দক্ষিণের সম্মেলন একই স্থানে হওয়ায় অন্যান্য সংগঠনের তুলনায় এবার মহানগর আওয়ামী লীগের সম্মেলনের মঞ্চ তৈরি করা হয়েছে বড় আকারে।

সম্মেলনকে ঘিরে নেতাকর্মীদের মধ্যে ব্যাপক উৎসাহ-উদ্দীপনা লক্ষ্য করা গেছে। রাজধানীর ও চারপাশ সেজেছে বর্ণিল সাজে। নেতাকর্মীদের ব্যানার, ফেস্টুনসহ বিভিন্ন রঙিন বাতি দিয়ে সাজানো হয়েছে শহরের গুরুত্বপূর্ণ পয়েন্ট।

মহানগর আওয়ামী লীগ উত্তর-দক্ষিণ, ৪৫ থানা ও ১০০ ওয়ার্ড ও ইউনিয়নগুলোর কমিটি হয়েছে। প্রতিটি থানার সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক হবে কাউন্সিলর। ওয়ার্ড ও ইউনিয়নের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকের নাম লিখে জমা দেবে থানার সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকের কাছে। তাদের মধ্যে থেকে সমন্বয় করে নির্বাচন করবে কে হবে কাউন্সিল আর কে হবে ডেলিগেট।

এরইমধ্যে কৃষকলীগ, জাতীয় শ্রমিকলীগ, স্বেচ্ছাসেবকলীগ ও যুবলীগের সম্মেলন শেষ হয়েছে। সব সংগঠনেই এসেছে নতুন নেতৃত্ব।  এরই ধারাবাহিকতায় মহানগর রাজনীতির শীর্ষ নেতৃত্বে আসছে নতুন মুখ-এমন আভাস দিয়েছেন দলটির একাধিক নীতিনির্ধারক। সমসময় ঢাকা মহানগর কমিটি গঠনের বিষয়টি খুবই গুরুত্ব সহকারে নিয়েছেন দলের সভাপতি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। এবারো তার ব্যতিক্রম নয়।

এ প্রসঙ্গে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও সড়ক পরিবহন সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের এক অনুষ্ঠানে বলেছেন, যারা দলের জন্য ত্যাগ স্বীকার করেছেন, যাদের ক্লিন ইমেজ, কোনো বিতর্কিত কর্মকাণ্ডে নেই, সাবেক ছাত্রনেতা তাদেরকেই দলের সভাপতি এবার মূল্যায়ন করবেন।

ঢাকা মহানগর দক্ষিণ আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক শাহে আলম মুরাদ সংবাদমাধ্যমকে বলেন, বঙ্গবন্ধু ও শেখ হাসিনার আদর্শ অনুসারী, মুক্তিযুদ্ধের পক্ষের শক্তি, ত্যাগী, সৎ, নিষ্ঠাবান কর্মীবান্ধব এমন নেতারা নেতৃত্বে আসবে বলে আশা করি।

ঢাকা মহানগর উত্তর আওয়ামী লীগের ১ নম্বর যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক এসএম মান্নান কচি বলেন, ক্লিন ইমেজ, ত্যাগী, কর্মীবন্ধব, ও পরীক্ষিত ছাত্রনেতাদের মধ্যে থেকে যাদেরকে ভালো মনে করবেন দলের সভাপতি তাকে দায়িত্ব দেবেন।

২০১২ সালের ২৭ ডিসেম্বর ঢাকা মহানগর আওয়ামী লীগের ত্রি-বার্ষিক সম্মেলন হয়। এর তিন বছর পর ঢাকা মহানগর আওয়ামী লীগকে দু’ভাগে বিভক্ত করা হয়। ২০১৬ সালের ১০ এপ্রিল মহানগর আওয়ামী লীগ উত্তর-দক্ষিণ, ৪৫টি থানা এবং ১০০টি ওয়ার্ড ও ইউনিয়নগুলোর সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকদের নাম ঘোষণা করা হয়।

নিউজওয়ান২৪.কম/এমজেড