ঢাকা, ১৮ নভেম্বর, ২০১৯
সর্বশেষ:
জরুরি প্রয়োজনে কল করুন- ৯৯৯ আওয়ামী লীগের জাতীয় সম্মেলন ডিসেম্বরে হেল্পলাইন ১৬২৬৩ এ কল করলেই ডাক্তারের পরামর্শ

বিএনপির তৃণমূল কর্মীরা সাহসী, নেতৃত্ব দুর্বল: হাফিজ

নিউজ ডেস্ক

প্রকাশিত: ২০:৫৫, ২৩ অক্টোবর ২০১৯  

বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান মেজর অবসরপ্রাপ্ত হাফিজ উদ্দিন আহমেদ- ফাইল ফটো

বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান মেজর অবসরপ্রাপ্ত হাফিজ উদ্দিন আহমেদ- ফাইল ফটো

তৃণমূল কর্মীরা সাহসী হলেও দলের নেতৃত্ব দুর্বল বলে মন্তব্য করেছেন বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান মেজর অবসরপ্রাপ্ত হাফিজ উদ্দিন আহমেদ। বিএনপিকে আরো সাহসী হওয়ার আহ্বান জানিয়ে তিনি বলেছেন, বিএনপির কর্মীরা সাহসী আছে নেতারা দুর্বল। এদের কেউ কেউ এত পয়সা বানিয়েছেন যে, তারা রাজপথে রোদ লাগাতে চান না।

বুধবার (২৩ অক্টোবর) জাতীয় প্রেস ক্লাবে বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী মুক্তিযোদ্ধা দল আয়োজিত এক আলোচনা সভায় হাফিজ এসব কথা বলেন। আলোচনা সভাটি দেশবিরোধী চুক্তি বাতিল, আবরার হত্যাকারীদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি, ভোলার ঘটনার দ্রুতবিচার এবং খালেদা জিয়ার নিঃশর্ত মুক্তির দাবিতে আয়োজন করা হয়।

বাংলাদেশ থেকে ভারতের আর কী নেয়ার আছে সে বিষয়ে তাদের একটি সেল গঠন করা বাকি আছে মন্তব্য করে হাফিজ উদ্দিন আহমেদ বলেন, ‘এখন তাদের কমিশন বসাতে হবে এখান থেকে নেয়ার মতো আর কী আছে। নদীর মাছ ও সাগরের মাছ তারা ধরে নিয়ে যায়। সুন্দরবন ছিল তা পুড়ে যাচ্ছে। তিতাস নদী বন্ধ করে তাদের গাড়ি-ঘোড়া চলবে। সবকিছুই তারা নিয়ে নিচ্ছে। এই সরকার ভারতের পদলেহী একটা সরকার। আমরা সাহসী সরকার চাই, মধ্যরাতে সরকার আমরা চাই না।’

সরকারের সমালোচনা করে তিনি বলেন, ‘এই সরকার অত্যন্ত দুর্বল সরকার। আপনারা মাঠে নামেন, ইনশাল্লাহ সরকার বিদায় হয়ে যাবে। প্রধানমন্ত্রীর উদ্দেশে বলতে চাই, আপনি অনেক বড় মাপের এক নেতার কন্যা। কত সম্মান আপনার জন্য। দেশটাকে আর ধ্বংস করবেন না। আপনি দেশকে ভারতের কোনো করদরাজ্য হতে দেবেন না। আপনার বাবাও দেয়নি, আপনিও দেবেন না। আমি বলব, আপনি তত্ত্বাবধায়ক সরকার প্রতিষ্ঠা করে পদত্যাগ করেন। জাতীয় সংসদ ভেঙে দেন। সব দলকে ফেয়ার একটা নির্বাচনের সুযোগ দেন। বাংলাদেশের গণতন্ত্রকে আর হত্যা করবেন না।’

তিনি বলেন, সেদিনের (সম্প্রতি ভারত সফরে পানিচুক্তি) নদীর চুক্তির পূর্ণ ব্যাখ্যা সরকারকে দিতে হবে। এ ছাড়া ভোলার বোরহানউদ্দিনে পুলিশের সঙ্গে স্থানীয়দের সংঘর্ষে যে চারজন নিহত হয়েছেন সে ঘটনার বিচার বিভাগীয় তদন্ত দাবিও করেন তিনি।

মুক্তিযোদ্ধা দলের সভাপতি ইশতিয়াক আজিজ উলফাতের সভাপতিত্বে সভায় অন্যদের মধ্যে নাগরিক ঐক্যের আহ্বায়ক মাহমুদুর রহমান মান্না, গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের ট্রাস্টি ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী, বিএনপির যুগ্ম-মহাসচিব অ্যাডভোকেট সৈয়দ মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল প্রমুখ বক্তৃতা করেন।

নিউজওয়ান২৪.কম/এমজেড