ঢাকা, ২২ ফেব্রুয়ারি, ২০২০
সর্বশেষ:
বগুড়া ও যশোরের উপনির্বাচন এবং চসিকের সিটি নির্বাচন ২৯ মার্চ জরুরি প্রয়োজনে কল করুন- ৯৯৯

দিন শেষে প্রথম ইনিংসে বাংলাদেশের সংগ্রহ ২৩৩

খেলা ডেস্ক

প্রকাশিত: ১৯:৩১, ৭ ফেব্রুয়ারি ২০২০  

ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত


রাওয়ালপিন্ডি টেস্টে পাকিস্তানের বিপক্ষে দুই ম্যাচ সিরিজের প্রথম টেস্টের প্রথম ইনিংসে সবকটি উইকেট হারিয়ে ২৩৩ রান তুলেছে সফরকারী বাংলাদেশ। 

ব্যাটসম্যানদের ব্যর্থতারে দিনে স্রোতের বিপরীতে অর্ধশতক হাঁকিয়েছেন মোহাম্মদ মিথুন।

টস হেরে ব্যাট করতে নামা বাংলাদেশের ইনিংসের উদ্বোধন করেন অভিজ্ঞ তামিম ইকবাল ও অভিষিক্ত সাইফ হাসান। কিন্তু সাইফের অভিষেকটা হলো রীতিমতো দুঃস্বপ্নের। ইনিংসের মাত্র তৃতীয় বলেই রানের খাতা খোলার আগেই শাহীন শাহ আফ্রিদীর বলে আসাদ শফিকের হাতে ধরা পড়েন সাইফ।

নামের প্রতি সুবিচার করতে পারেননি বিরতি থেকে ফেরা তামিম ইকবালও। ৫ বলে ৩ রান করে মোহাম্মদ আব্বাসের বলে লেগ বিফোরের ফাঁদে পড়েন তামিম। মাত্র ৩ রানে দুই উইকেট হারিয়ে ব্যাকফুটে চলে যায় বাংলাদেশ।

ক্যারিয়ারের তৃতীয় টেস্ট খেলতে নামা নাজমুল শান্ত এবং অধিনায়ক মুমিনুল হকের ব্যাটে নিজেদের গুছিয়ে নেয়ার চেষ্টা করতে থাকে বাংলাদেশ। তাদের ৫৮ রানের জুটিতে প্রাথমিক বিপর্যয় সামাল দেয় টাইগাররা।

দলীয় ৬১ রানের মাথায় ৫৯ বলে ৩০ রান করে শাহীন শাহ আফ্রিদীর দ্বিতীয় শিকারে পরিণত হন মুমিনুল। মুমিনুলের বিদায়ের পর শান্তর সঙ্গে দলের হাল ধরেন অভিজ্ঞ ব্যাটসম্যান রিয়াদ।

চতুর্থ উইকেট জুটিতে অবিচ্ছিন্ন ৩৪ রান তুলে মধ্যাহ্নবিরতিতে যান শান্ত-রিয়াদ। ৯৫ রানে ৩ উইকেট নিয়ে দ্বিতীয় সেশন শুরু করেন তারা। বিরতি থেকে ফিরে কোনো রান যোগ না করেই সাজঘরে ফেরেন ৪৪ রান করা শান্ত। 

এর কিছুক্ষণ পরই প্যাভিলিয়নের পথ ধরেন দলের অন্যতম ব্যাটিং স্তম্ভ রিয়াদও। দলীয় ১০৭ রানের মাথায় ২৫ রান করে ফিরে যান রিয়াদ। এরপর দলেল হাল ধরেন মিথুন ও লিটন দাস। লিটন দাস সেট হয়ে উইকেট দিয়ে আসলে আবারো ব্যাকফুটে পড়ে যায় টাইগাররা।

দলীয় ১৬১ রানের মাথায় ৩০ রান করে সাজঘরে ফেরেন লিটন। এরপর তাইজুল ইসলামকে সঙ্গে নিয়ে প্রতিরোধ গড়ে তোলেন মিথুন। আর কোনো উইকেট না হারিয়েই দলীয় ২০০ রান পার করেন মিথুন-তাইজুল। অর্ধশতক তুলে নেন মিথুন।

দলীয় ২১৪ রানের মাথায় তাইজুলকে সাজঘরে ফিরিয়ে জুটি ভাঙেন হারিস সোহেল। ৭২ বলে ২৪ রানের কার্যকারী একটি ইনিংস আসে তার ব্যাট থেকে। 

দলীয় ২২৯ রানে মিথুনের বিদায়ের পরপরই কার্যত টাইগারদের লড়াই শেষ হয়ে যায়। ১৪০ বলে ৬৩ রানের গুরুত্বপূর্ণ একটি ইনিংস উপহার দেন মিথুন। শেষ পর্যন্ত সবকটি উইকেট হারিয়ে ২৩৩ রান তোলে বাংলাদেশ। 

পাকিস্তানের সফলতম বোলার শাহীন শাহ আফ্রিদী ৪টি উইকেট নেন। এছাড়া দু’টি করে উইকেট নিয়েছেন হারিস সোহেল ও মোহাম্মদ আব্বাস। 

নিউজওয়ান২৪.কম/এমজেড