ঢাকা, ০৭ জুলাই, ২০২০
সর্বশেষ:
সেহরি ও ইফতারের সময় সূচি : ঢাকায় প্রথম রোজার সেহরির শেষ সময় রাত ৪টা ৫ মিনিটে আর ইফতার হবে সন্ধ্যা ৬টা ২৮ মিনিটে। আইইডিসিআর এর করোনা কন্ট্রোল রুম (০১৭০০৭০৫৭৩৭) অথবা হটলাইন নম্বরে (০১৯৩৭১১০০১১, ০১৯৩৭০০০০১১, ০১৯২৭৭১১৭৮৪, ০১৯২৭৭১১৭৮৫, ০১৯৪৪৩৩৩২২২, ০১৫৫০০৬৪৯০১–০৫) যোগাযোগ করা যাবে। এ ছাড়া করোনাসংক্রান্ত তথ্য জানতে বা সহযোগিতা পেতে স্বাস্থ্য বাতায়ন ১৬২৬৩ এবং ৩৩৩ নম্বরে ফোন করা যাবে। অনলাইনে করোনা নিয়ে যোগাযোগ করতে আইইডিসিআরের ই-মেইল [email protected] এবং ফেসবুক পেজে (Iedcr,COVID19 Control Room) যোগাযোগ করা যাবে। জরুরি প্রয়োজনে কল করুন- ৯৯৯

দিন শেষে টাইগারদের শঙ্কা রয়ে গেল  

স্পোর্টস ডেস্ক

প্রকাশিত: ১৯:৪১, ৬ সেপ্টেম্বর ২০১৯  

ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

দীর্ঘ দশ মাস পর আফগানিস্তানের বিপক্ষে ঘরের মাঠে টেস্ট খেলতে নামে টাইগাররা। কিন্তু আফগান স্পিনারদের বলে একেবারে নাকানি চুবানি খাওয়ার মতো অবস্থায় টাইগাররা। 

দ্বিতীয় দিনে বাংলাদেশ তাদের প্রথম ইনিংস শেষ করে ৮ উইকেট হারিয়েছে ১৯৪ রানে। মুসাদ্দেক ৪৪ ও তাইজুল ইসলাম ১৪ রানে অপরাজিত থেকে ব্যাট করছেন। ফলে দিন শেষ টাইগারদের শঙ্কা রয়ে গেল।  

প্রথম ইনিংসে আফগানিস্তান করে ৩৪২ রান। জবাবে ১৩০ রান তুলতেই ৭ উইকেট নেই বাংলাদেশের। আফগান বোলাররা যেভাবে চেপে ধরেছিলেন, তাতে বাকি ৩ উইকেটও পড়ার সম্ভাবনা দেখা দেয়। সেক্ষেত্রে ফলোঅনের শঙ্কাও দেখা দেয়। মুসাদ্দেক ও তাইজুল ইসলামের ব্যাটে সেটি অবশ্য পার করেছে বাংলাদেশ। কোনোমতে ফলোঅনের লজ্জা এড়িয়েছে। 

তবে দিন শেষে যা মনে হচ্ছে চট্টগ্রাম টেস্টে হার এড়ানো কঠিনই হবে বাংলাদেশের জন্য। প্রথম ইনিংসে যে এখনও বড় ব্যবধানেই পিছিয়ে আছে সাকিব আল হাসানের দল। 

শুক্রবার জহুর আহমেদ চৌধুরী স্টেডিয়ামে দ্বিতীয় দিনের খেলায় মুখোমুখি হয় বাংলাদেশ-আফগানিস্তান। দ্বিতীয় দিনে ৩৪২ রানের  লক্ষ্য তাড়া করতে ব্যাটিংয়ে নামে টাইগাররা। তবে খুব একটা ভালো গেল না শুরুটা। প্রথম ওভারের ৪ বলের মাথায়  রানের খাতা ০ করে স্লিপে ক্যাচ দিয়ে প্যাভিলিয়নে ফিরে যান সাদমান ইসলাম। 

এরপর সৌম্য লিটনে এগোচ্ছিল বাংলাদেশ। কিন্তু মোহাম্মাদ নাবি এসে বাধা হয়ে দাঁড়ালেন। এলবিতে ফেরালেন সৌম্যকে ১৭ রানে। দলীয় রান তখন ৩৮। লিটন একাই দলকে টেনে নিচ্ছিলেন। তবে এবার লিটনকে শিকার বানালেন আফগান অধিনায়ক। ৩৩ রানে বোল্ড করে সাজ ঘরে ফেরান লিটনকে। তারপর কেবল আসা যাওয়ার মিছিলে শরিক হন সাকিব ১৭ রানে, মমিনুল ৫২ রানে, মুশফিক ০ রানে, মাহমুদুল্লাহ ৭ রানে, মেহেদী মিরাজ ১১ রানে।  

দলের এই বিপর্যয়ে হাল ধরে ব্যাট করছেন মোসাদ্দেক সৈকত ৪৪ রানে ও তাইজুল ইসলাম ১৪ রানে। দু’জনেই আছেন অপরাজিত। আফগানদের হয়ে রশিদ খান একাই তুলে নিয়েছেন ৪ উইকেট।

আজ দিনের শুরুতে আসগর আফগানকে ফিরিয়ে দেন তাইজুল ইসলাম। সেঞ্চুরি বঞ্চিত সাবেক এই অধিনায়ক ১৭৪ বলে ৩টি চার ও দুটি ছক্কায় ৯২ করে উইকেটরক্ষক মুশফিকুর রহিমকে ক্যাচ দেন। পরে ৪১ রানে থাকা আফসার জাজাইকে বোল্ড করেন এই বাঁহাতি।

কাইস আহমেদকে মুমিনুল হকের ক্যাচ বানিয়ে নিজের প্রথম উইকেট তুলে নেন সাকিব আল হাসান। ইয়ামিন আহমেদজাইকেও ফেরান সাকিব। তবে ভয়ঙ্কর হয়ে ওঠা আফগান অধিনায়ক রশিদ খানকে বিদায় করে প্রতিপক্ষের ইনিংসের সমাপ্তি ঘটান মেহেদি হাসান মিরাজ। ৬১ বলে ২ চার ও ৩ ছক্কায় ৫১ করেন রশিদ খান।

এর আগে প্রথম ইনিংসে টস জিতে ব্যাট করতে নেমে ৩৪২ রানের বড় স্কোর গড়ে আফগানরা। আফগানিস্তানের হয়ে টেস্ট ক্রিকেটে প্রথম সেঞ্চুরি করেন তিনি। তার সেঞ্চুরি এবং ৮৮ রানে থাকা আসগর আফগানের ব্যাটে ভর করে প্রথম দিন শেষে আফগানিস্তানের সংগ্রহ ছিল ৫ উইকেট হারিয়ে ২৭১ রান।

দ্বিতীয় দিন ব্যাট করতে নেমে দ্রুত বাকি ৫ উইকেট হারালেও ৩৪২ রানের বড় সংগ্রহ দাঁড় করায় আফগানরা। ১০২ রান করে আউট হন রহমত শাহ। ৯২ রান করেন আসগর আফগান এবং শেষ মুহূর্তে ঝড়ো হাফসেঞ্চুরি করেন রশিদ খান।

বাংলাদেশ বোলারদের মধ্যে তাইজুল ৪টি, নাঈম হাসান ও সাকিব দুটি, আর মাহমুদউল্লা ও মিরাজ একটি করে উইকেট পান।

নিউজওয়ান২৪.কম/এমজেড