ঢাকা, ১৮ সেপ্টেম্বর, ২০২০
সর্বশেষ:
আইইডিসিআর এর করোনা কন্ট্রোল রুম (০১৭০০৭০৫৭৩৭) অথবা হটলাইন নম্বরে (০১৯৩৭১১০০১১, ০১৯৩৭০০০০১১, ০১৯২৭৭১১৭৮৪, ০১৯২৭৭১১৭৮৫, ০১৯৪৪৩৩৩২২২, ০১৫৫০০৬৪৯০১–০৫) যোগাযোগ করা যাবে। এ ছাড়া করোনাসংক্রান্ত তথ্য জানতে বা সহযোগিতা পেতে স্বাস্থ্য বাতায়ন ১৬২৬৩ এবং ৩৩৩ নম্বরে ফোন করা যাবে। অনলাইনে করোনা নিয়ে যোগাযোগ করতে আইইডিসিআরের ই-মেইল [email protected] এবং ফেসবুক পেজে (Iedcr,COVID19 Control Room) যোগাযোগ করা যাবে। জরুরি প্রয়োজনে কল করুন- ৯৯৯

ঢাকা-১৮ আসন উপ-নির্বাচন, কে হবেন নৌকার মাঝি?

নিজস্ব প্রতিবেদক

প্রকাশিত: ১৯:৪৩, ২ সেপ্টেম্বর ২০২০  

ফাইল ফটো

ফাইল ফটো


রাজধানীর প্রবেশদ্বার হিসেবে পরিচিত ঢাকা ১৮ আসনটিতে ১২ বছর ধরে এমপি ছিলেন আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য ও সাবেক স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অ্যাডভোকেট সাহারা খাতুন। তার মৃত্যুতে এই আসনে উপনির্বাচনে দলীয় মনোনয়ন নিশ্চিত করতে বিভিন্ন মহলে দৌড় ঝাপ শুরু করেছেন অনেক প্রার্থী।

এ আসনে নৌকার হাল ধরতে ৫৬ জন মনোনয়নপত্র সংগ্রহ করেছেন। একজন ক্লিন ইমেজসম্পন্ন এবং দলের দুর্দিনে যারা শ্রম ও সময় দিয়ে দলের নেতাকর্মীদের চাঙ্গা রেখেছেন এমনই প্রর্থী সন্ধান করছেন নীতি নির্ধারকরাও।

দলের প্রার্থী বাছাইয়ে সাহায্য করছেন একাধিক গোয়েন্দা সংস্থা সাংগঠনিক ও দলের একাধিক সংস্থার মাধ্যমেও জরিপ চালিয়েছেন। 

গত রোববার প্রার্থী বাছাই চূড়ান্ত করতে প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে বৈঠক করেছেন মনোনয়ন বাছাই কমিটি।

পাবনা-৪ আসনে উপ-নির্বাচনে নূরুজ্জামান বিশ্বাস নৌকার প্রার্থীর নাম চূড়ান্ত হয় এবং  সিরাজগঞ্জ-১ আসন নাসিমপুত্র জয় একক প্রার্থী চূড়ান্ত হয়।

বাকি আসনে তফসিল ঘোষণার পর প্রার্থীর নাম চূড়ান্ত করবেন দলের সভানেত্রী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তফসিল ঘোষণার আগেই একটি জাতীয় দৈনিকে উপ-নির্বাচনের ৫ প্রার্থীও নাম ও ছবি প্রকাশ হওয়ায় এলাকায় ধুম্রজাল তৈরি হয়েছে। অনেক প্রার্থী ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়াও জানিয়েছেন।

এ প্রসঙ্গে মনোনয়ন প্রত্যাশী শাহজাহান আলী মণ্ডল বলেন, যারা তৃণমূল পর্যায়ে এবং স্থানীয়ভাবে সময়, শ্রম, মেধা দিয়ে কাজ করেন তাকেই দল মূল্যায়ন করবেন বলে আমার বিশ্বাস।

এদিকে নৌকার হাল ধরতে মনোনয়ন প্রত্যাশীরা রং-বেরঙের পোস্টার, ব্যানারে ছেয়ে ফেলেছেন পুরো বিমানবন্দর এলাকার রাস্তাঘাট।

মনোনয়ন প্রত্যাশীদের মধ্যে বিমানবন্দর থানা আওয়ামী লীগের সভাপতি মো. শাহজাহান আলী মণ্ডল এক সাক্ষাৎকারে বলেন, দীর্ঘদিন বিমানবন্দর থানা আওয়ামী লীগের সভাপতি হিসেবে দলের কাজ করে যাচ্ছি, ঢাকা কাস্টমস এজেন্ট অ্যাসোসিয়েশনের সাধারণ সম্পাদক ৩ বার ও সভাপতি ছিলাম ২ বার। যেহেতু বিমানবন্দর কেন্দ্রিক হাজার হাজার সিঅ্যান্ডএফ ব্যবসায়ীরা তুরাগ, উত্তরা, উত্তর খান, দক্ষিণ খান আশকোনা, কাওলা, খিলক্ষেত, বিশ্বরোড এলাকায় অবস্থান করেন সে কারণে সব মহলে আমার পরিচিতি এবং গ্রহণযোগ্যতা রয়েছে এবং প্রয়াত সাহারা আপার সঙ্গে দলের হয়ে বিভিন্ন বিষয় নিয়ে কাজ করেছি, দলকে সুসংগঠিত করেছি, মাদক, জঙ্গিবাদ দমনে ও সন্ত্রাসের বিরুদ্ধে কাজ করেছি, করোনাভাইরাস মোকাবিলায় সব প্রকার সহযোগিতা করে যাচ্ছি।

বিমানবন্দর থানা আওয়ামী লীগের সভাপতি মো. শাহজাহান আলী মণ্ডলবিমানবন্দর থানা আওয়ামী লীগের সভাপতি মো. শাহজাহান আলী মণ্ডল

তিনি বলেন, আমি দায়িত্বে থাকাকালীন অবস্থায় বিমানবন্দরের গুরুত্বপূর্ণ এলাকায় কোনো সন্ত্রাসী কার্যকলাপ হরতাল, অবরোধ এমন কিছু ঘটেনি। দলের নেতাকর্মী নিয়ে সব সময় সজাগ থেকে কাজ করে যাচ্ছি, এখনো দলের হয়ে রাতদিন পরিশ্রম করছি, তাই আমি আশাবাদী দল আমাকে মনোনয়ন দেবেন । আমার বিরুদ্ধে কোনো অর্থ কেলেঙ্কারী, দুর্নীতি, টেন্ডারবাজী এ ধরনের কোনো অভিযোগ নেই, সেটা আমি জোর গলায় বলতে পারি । তাই সব জরিপের মাধ্যমে আমি এগিয়ে থাকবো এটা আমার বিশ্বাস।

বিমানবন্দর এলাকায় সরে জমিনে ঘুরে বিভিন্ন শেণিপেশার মানুষের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, তারা এমন একজন এমপি চায় যিনি অত্র এলাকার উন্নয়নে কাজ করবেন এবং যার বিরুদ্ধে কোনো ধরনের বদনাম নাই।

আরও পড়ুন