ঢাকা, ১০ এপ্রিল, ২০২০
সর্বশেষ:
আইইডিসিআর এর করোনা কন্ট্রোল রুম (০১৭০০৭০৫৭৩৭) অথবা হটলাইন নম্বরে (০১৯৩৭১১০০১১, ০১৯৩৭০০০০১১, ০১৯২৭৭১১৭৮৪, ০১৯২৭৭১১৭৮৫, ০১৯৪৪৩৩৩২২২, ০১৫৫০০৬৪৯০১–০৫) যোগাযোগ করা যাবে। এ ছাড়া করোনাসংক্রান্ত তথ্য জানতে বা সহযোগিতা পেতে স্বাস্থ্য বাতায়ন ১৬২৬৩ এবং ৩৩৩ নম্বরে ফোন করা যাবে। অনলাইনে করোনা নিয়ে যোগাযোগ করতে আইইডিসিআরের ই-মেইল [email protected] এবং ফেসবুক পেজে (Iedcr,COVID19 Control Room) যোগাযোগ করা যাবে। জরুরি প্রয়োজনে কল করুন- ৯৯৯

গেইলের ১৮+

স্পোর্টস ডেস্ক

প্রকাশিত: ১৫:৫৪, ৩ ডিসেম্বর ২০১৮  

ফাইল ছবি

ফাইল ছবি

 

ওয়েস্ট ইন্ডিজের তারকা ব্যাটসম্যান নাকি এক নারী ম্যাসেঞ্জারের সামনে অসভ্যতা করেন। অস্ট্রেলিয়ার মিডিয়া গ্রুপ ফেয়ারফ্যাক্স এমনই এক দাবী করেন ২০১৭ সালে। অস্ট্রেলিয়া-নিউজিল্যান্ডে তখন ক্রিকেট বিশ্বকাপ চলছে।  মর্নিং হেরাল্ড, দ্য এজ এবং ক্যানবেরা টাইমসের মতো সংবাদমাধ্যম প্রতিবেদন করে ওই থেরাপিস্টের সামনে নিজের পরনে থাকা তোয়ালে খুলে ফেলেন গেইল।

কিন্তু গেইল তার নামে করা অভিযোগ ভিত্তিহীন বলে দাবি করেন। আর ফেয়ারফ্যাক্স মিডিয়া গ্রুপের নামে ঠুকে দেন মানহানি মামলা। সেই মামলায় গেইল জিতেছেন। ফেয়ারফ্যাক্স মিডিয়া গ্রুপ তাদের প্রতিবেদনের স্বপক্ষে কোন প্রমাণ দাঁড় করাতে পারেনি। আর তাই গেইলকে তাদের দিতে হবে তিন লাখ অস্ট্রেলিয়ান ডলার। বাংলাদেশের হিসেবে যা প্রায় ১৮ কোটি ৬১ লাখ টাকা।

গেইল গত বছরের অক্টোবরে মানহানির মাললাটি করেন। এর প্রায় ১৩ মাস পরে বের হলো রায়। নিউ সাউথ ওয়েলসের কোর্টে বসে এই মামলার বেঞ্চ। জুরি বোর্ডের পাঁচ বিচারক ফেয়ারফ্যাক্সের দেওয়া প্রমাণ বিশ্লেষণ করে দেখেন যে, ওয়েস্ট ইন্ডিজ তারকার বিরুদ্ধে তারা কোন যুক্তি দাঁড় করাতে পারেননি।

এর আগে গেইল মামলা করার সময় বলেন, 'আমি এ জীবনে যত বাজে ঘটনার মুখোমুখি হয়েছি, এটি তার মধ্যে ভয়াবহতম। আমি দৃঢ়প্রতিজ্ঞ, মিথ্যা এই অভিযোগ থেকে আমি নিজেকে মুক্ত করবই।' এবার গেইল মুক্ত হলেন সেই অভিযোগ থেকে। তাদের সংবাদের প্রেক্ষিতে ফেয়ারফ্যাক্স মিডিয়া গ্রুপ সে সময় জানায়, তাদের কাছে যথেষ্ঠ তথ্য আছে। কিন্তু জুরি বোর্ডের সামনে তারা তা প্রমাণ করতে ব্যর্থ হয়। 

নিউজ ওয়ান২৪/ইরু