ঢাকা, ০৪ ডিসেম্বর, ২০২১
সর্বশেষ:

খালেদা জিয়াকে বিদেশ যেতে অনুমতি দেবে সরকার, আশা ফখরুলের

নিজস্ব প্রতিবেদক

প্রকাশিত: ১৬:৫৮, ৬ মে ২০২১  

ফাইল ছবি

ফাইল ছবি

মানবিক কারণে সরকার খালেদা জিয়াকে চিকিৎসার জন্য বিদেশে যাওয়ার অনুমতি দেবে বলে আশা প্রকাশ করেছেন বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।

আজ (বৃহস্পতিবার) দুপুরে বিএনপি চেয়ারপারসনের গুলশান কার্যালয়ে এক অনুষ্ঠানে তিনি একথা বলেন।

তিনি বলেন, ‘খালেদা জিয়ার বিদেশ যাওয়া সরকারের সদিচ্ছার ওপর নির্ভর করছে। সোমবার সন্ধ্যায় খালেদা জিয়ার অবস্থা সম্পর্কে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীকে জানিয়েছি। তাকে বিদেশে নিতে পরিবারের ইচ্ছার কথা তুলে ধরেছি। পরিবার চায় খালেদা জিয়াকে বিদেশে নিয়ে উন্নত চিকিৎসা করাতে। খালেদা জিয়ার উন্নত চিকিৎসার জন্য সরকারের ইতিবাচক সাড়া পাওয়া যাবে বলে আশা করছি।’

তিনি বলেন, ‘করোনা সংক্রমণ পরবর্তী, যেটাকে পোস্ট কোভিড জটিলতা বলা হয়, সেই জটিলতাই কিন্তু মাঝে মাঝে টার্ন নেয় বিভিন্ন দিকে। উনার (খালেদা জিয়া) যে বয়স, উনার যে বিভিন্ন রোগ আছে, এর আগে উনি যে প্রায় তিন বছর কারাগারে ছিলেন, এখনো তিনি অন্তরীণই আছেন। এ অবস্থার প্রেক্ষিতে তার জটিলতা হয়েছে এবার।’

খালেদা জিয়ার চিকিৎসার অবস্থা তুলে ধরে মির্জা ফখরুল বলেন, ‘সে জন্যই আমাদের দেশের প্রায় বেশির ভাগ মানুষের আকাঙ্ক্ষা আছে, ইচ্ছা আছে যে, তার চিকিৎসা উন্নত কোনো হাসপাতালে হওয়া উচিত। বাংলাদেশে উন্নত হাসপাতালেই তিনি চিকিৎসা নিচ্ছেন। আরও উন্নত, বিদেশে হাসপাতালে চিকিৎসা নেয়া সম্ভব কিনা। আপনারা জানেন যে, গতকাল তার পরিবার থেকে বিদেশে উন্নত চিকিতসার জন্য যে অনুমতি দরকার, সেই অনুমতি চাওয়া হয়েছে। আমরা আশা করি, সরকার মানবিক কারণে তার বিদেশে চিকিৎসার ব্যবস্থা করবে।’

এর আগে বুধবার রাতে খালেদা জিয়ার ছোট ভাই শামীম ইস্কান্দার পরিবারের পক্ষ থেকে খালেদা জিয়াকে বিদেশে উন্নত চিকিতসা পাঠাতে অনুমতি চেয়ে আবেদনপত্র স্বরাষ্ট্র মন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামালের কাছে পৌঁছিয়ে দেন।

করোনা আক্রান্ত হয়ে এ পর্যন্ত সারা দেশে ৪২৫ জন বিএনপি নেতাকর্মী মারা যায় বলে জানানো হয় অনুষ্ঠানে।

বিএনপির দফতরের দায়িত্বপ্রাপ্ত সাংগঠনিক সম্পাদক সৈয়দ এমরান সালেহ প্রিন্সের পরিচালনায় অনুষ্ঠানে দলের স্থায়ী কমিটির সদস্য নজরুল ইসলাম খান বক্তব্য রাখেন।

অনুষ্ঠানে হাবিব-উন-নবী খান সোহেল, মুন্সি বজলুল বাসিত আনজু, স্বেচ্ছাসেবক দলের আবদুল কাদির ভুঁইয়া জুয়েল, যুবদলের এসএম জাহাঙ্গীর, ছাত্রদলের ফজলুর রহমান খোকন, স্বাধীনতার সূবর্ণজয়ন্তী উদযাপন উপ-কমিটির নেতা আতিকুর রহমান রুমন, বিএনপি চেয়ারপারসনের বিশেষ সহকারী অ্যাডভোকেট শামসুর রহমান শিমুল বিশ্বাস উপস্থিত ছিলেন।

এ সময় করোনায় মারা যাওয়া বিএনপি ও অঙ্গ সংগঠনের নেতাদের পরিবারের মাঝে ঈদের শুভেচ্ছা উপহার তুলে দেন বিএনপি মহাসচিব।

প্রসঙ্গত, গত ১০ এপ্রিল করোনা পরীক্ষার পর খালেদা জিয়ার সংক্রমণ ধরা পড়ে। শুরুতে তিনি গুলশানে তার ভাড়া বাসা ফিরোজায় ব্যক্তিগত চিকিৎসক অধ্যাপক এফ এম সিদ্দিকীর অধীনে চিকিৎসা নিচ্ছিলেন।

২৭ এপ্রিল আবার সিটি স্ক্যানসহ প্রয়োজনীয় কিছু পরীক্ষার জন্য খালেদা জিয়াকে এভারকেয়ার হাসপাতালে নেয়া হয়। সেই রাতেই তাকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।

৪ মার্চ দুপুরে শারীরিক অবস্থার অবনতি হলে খালেদা জিয়াকে হাসপাতালের সিসিইউতে স্থানান্তর করা হয়।

আরও পড়ুন