ঢাকা, ১৫ আগস্ট, ২০২০
সর্বশেষ:
সেহরি ও ইফতারের সময় সূচি : ঢাকায় প্রথম রোজার সেহরির শেষ সময় রাত ৪টা ৫ মিনিটে আর ইফতার হবে সন্ধ্যা ৬টা ২৮ মিনিটে। আইইডিসিআর এর করোনা কন্ট্রোল রুম (০১৭০০৭০৫৭৩৭) অথবা হটলাইন নম্বরে (০১৯৩৭১১০০১১, ০১৯৩৭০০০০১১, ০১৯২৭৭১১৭৮৪, ০১৯২৭৭১১৭৮৫, ০১৯৪৪৩৩৩২২২, ০১৫৫০০৬৪৯০১–০৫) যোগাযোগ করা যাবে। এ ছাড়া করোনাসংক্রান্ত তথ্য জানতে বা সহযোগিতা পেতে স্বাস্থ্য বাতায়ন ১৬২৬৩ এবং ৩৩৩ নম্বরে ফোন করা যাবে। অনলাইনে করোনা নিয়ে যোগাযোগ করতে আইইডিসিআরের ই-মেইল [email protected] এবং ফেসবুক পেজে (Iedcr,COVID19 Control Room) যোগাযোগ করা যাবে। জরুরি প্রয়োজনে কল করুন- ৯৯৯

কুয়েতে ৪ মাস বেতনহীন বাংলাদেশি শ্রমিক লাফিয়ে পড়লেন ছাদ থেকে

কুয়েত সংবাদদাতা

প্রকাশিত: ২৩:৫৩, ২৩ এপ্রিল ২০১৯  

৭/৮ লাখ টাকা খরচ করে কুয়েতে গিয়েছিলেন গফরগাঁয়ের ইসমাইল। কিন্তু ভাগ্য পরিবর্তনে সেখানে গিয়ে পড়েন মারাত্মক ধোঁকায়। গিয়ে দেখেন সবকিছু উলট-পালট। ঠিকমত বেতন পাচ্ছিলেন না। এভাবে চার মাস হয়ে যায়। শেষমেষ গত ২০ মার্চ কুয়েত আল-আহলিয়া কোম্পানির ৩ তলা থেকে লাফ দিয়ে পড়ে আত্মহত্যার চেষ্টা করেন তিনি। তার ব্যাপারে বিস্তারিত জানা যায়নি।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়, ইসমাইল আল-আহলিয়া ক্লিনিং কোম্পানির কাজ করতো। ৪ মাস যাবৎ বেতন দেয়নি তার কোম্পানি। থাকা খাওয়ার কষ্টে মানবেতর জীবন যাপন করছিল। আসার সময় দেশ থেকে করে আসা ঋণের সুদ ও পাওনাদারদের চাপে পরিবারের সঙ্গে ঝগড়া লেগেই ছিল। এন নিয়ে রাগে ক্ষোভে কোম্পানির ব্যারাকের তিনতলার ছাদ হতে লাফ দিয়ে আত্মহত্যার চেষ্টা চালায়। এতে তার হাত-পা-কোমড় ভেঙ্গে যায়। গুরুতর অবস্থায় তাকে পুলিশ উদ্ধার করে।

আহত প্রবাসী ইসমাইল, বর্তমানে ফরওয়ানিয়া হাসপাতালে আইসিইউতে চিকিৎসাধীন আছেন।

সঙ্গীরা জানায়, ১৬ থেকে ১৭ হাজার টাকার বেতনের চাকরি নিয়ে আসে ইসমাইল। কিন্ত সেই কেতনও আবার নিয়মিত পেত না। ছিল থাকা-খাওয়ার কষ্ট, আকামা সমস্যা। সঙ্গে যোগ হয় পারিবারিক অশান্তি। এসব কিছু মিলে এ আত্মহত্যার মতো ভুল সিদ্ধান্ত নেয়।

প্রবাসী অনেক শ্রমিক ইসমাইলের ঘটনায় সনির্বন্ধ অনুরোধ জানিয়েছেন বাংলাদেশে দূতাবাসের প্রতি। তাদের আকুল অনুরোধ, যে সকল কোম্পানির প্রবাসী বাংলাদেশি শ্রমিকরা বেতন ও আকামা সমস্যা ভুগছে দ্রুত সে সকল কোম্পানির সঙ্গে আলাপ করে সমস্যা সমাধান করা।

তাদের আরো দাবি, দূতাবাসের একটি হট লাইন ফোন চালু করা যাতে শ্রমিকরা তাদের সমস্যার ব্যাপারে দ্রুত জানাতে পারে। অন্যদেশের দূতাবাসগুলোতে এমন হটলাইন রয়েছে। এছাড়া সরকারের উদ্যোগ নিয়ে অভিবাসন ব্যয়টা কমিয়ে আনতে পদক্ষেপ নেয়া জরুরি। একইসঙ্গে যে সকল শ্রমিক ভাইয়ের উচ্চমূল্য দিয়ে ভিসা নিয়ে আসার পরিকল্পনা করেন বিদেশ যাত্রার- তাদের উচিৎ তার আগে আরো একটু চিন্তা এবং খোঁজখবর নেয়া

নিউজওয়ান২৪.কম/আরকে

আরও পড়ুন
প্রবাসী দুনিয়া বিভাগের সর্বাধিক পঠিত