ঢাকা, ০৪ আগস্ট, ২০২০
সর্বশেষ:
সেহরি ও ইফতারের সময় সূচি : ঢাকায় প্রথম রোজার সেহরির শেষ সময় রাত ৪টা ৫ মিনিটে আর ইফতার হবে সন্ধ্যা ৬টা ২৮ মিনিটে। আইইডিসিআর এর করোনা কন্ট্রোল রুম (০১৭০০৭০৫৭৩৭) অথবা হটলাইন নম্বরে (০১৯৩৭১১০০১১, ০১৯৩৭০০০০১১, ০১৯২৭৭১১৭৮৪, ০১৯২৭৭১১৭৮৫, ০১৯৪৪৩৩৩২২২, ০১৫৫০০৬৪৯০১–০৫) যোগাযোগ করা যাবে। এ ছাড়া করোনাসংক্রান্ত তথ্য জানতে বা সহযোগিতা পেতে স্বাস্থ্য বাতায়ন ১৬২৬৩ এবং ৩৩৩ নম্বরে ফোন করা যাবে। অনলাইনে করোনা নিয়ে যোগাযোগ করতে আইইডিসিআরের ই-মেইল [email protected] এবং ফেসবুক পেজে (Iedcr,COVID19 Control Room) যোগাযোগ করা যাবে। জরুরি প্রয়োজনে কল করুন- ৯৯৯

এ কেমন লুটপাট!

সিরাজগঞ্জ সংবাদদাতা

প্রকাশিত: ১২:৫২, ২৪ এপ্রিল ২০১৯  

প্রতীকি চিত্র

প্রতীকি চিত্র

লুটপাট অনেক ধরনের হয়। তবে এই ঘটনাটি একবোরেই অন্যরকম। ঘটনা হয়তো তেমন বড় কিছু না, কিন্তু ঘটনা জানার পর অনেকেই বলছেন- মানুষ এমন কাণ্ডও ঘটাতে পারে! 

গতকাল মঙ্গলবার দুপুরের ঘটনা। সিরাজগঞ্জের কামারখন্দ উপজেলার জামতৈল ধোপাকান্দি পাইলট বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের এই দুপুরটি অন্যান্য দিনের মতো নয়। কারণ, স্কুলে নতুন যোগ দেওয়া দুই সহকারি শিক্ষক চাকরি পাওয়ার আনন্দ উদযাপন করতে ভোজের আয়োজন করেছেন অন্যান্য শিক্ষক-কমকর্তা-কর্মচারীদের জন্য। নয়া চাকরি পাওয়ার পর প্রথম বেতন থেকে এমন সহকর্মীদের জন্য এমন আয়েঅজন অনেকেই করে থাকেন। তাই, ব্যাপারটা নিয়ে সবাই খুশি। 

কিন্তু সবার খুশি হঠাৎ যেন হোঁচট খেল এক অপ্রত্যাশিত বাঁধায়। রান্নার কাজ শেষে সবাই হাতমুখ ধুয়ে প্রস্তুত হচ্ছিলেন খাবার পর্ব শুরুর জন্য। এসময় বলা নেই কওয়া নেই বহিরাগত স্কুলের মধ্যে সহসাই একটি ভ্যানগাড়ি ঢুকে যায়। সঙ্গে আসে কয়েকজন বেপরোয়া স্বভাবের লোক। তারা ঝটপট রান্না করা খাবারসহ হাড়ি-পাতিল সব ভ্যান গাড়িতে তোলে। এরপর যেমন ঝড়ের গতিতে তারা এসেছিল তেমনি ঝঞ্ঝার বেগে স্থান ত্যাগ করে। ঘটনার আকস্মিকতায় বিস্ময়ে বিমূঢ় হয়ে পড়া সবার মুখ হা হয়ে যায়। এমনিতে দুপুর বেলার ক্ষুধাতার ওপর ভালমন্দ পাকের ঘ্রাণে তা চাগিয়ে ছিল কয়েখগুনণ। এমন মোক্ষম সময়ে কোন বেরসিক এমন কাণ্ড করতে পারে! 

ঘোর কাটতেই ক্ষোভে ফেটে পড়েন শিক্ষকরা। এ ধরণের ন্যাক্কারজনক ঘটনার সুষ্ঠু তদন্তপূর্বক বিচার দাবি করেছেন তারা। স্কুল থেকে খাবারের হাড়ি ছিনতাইয়ের ঘটনা উল্লেখ করে শিক্ষকরা উপজেলা নির্বাহী অফিসারসহ জেলা প্রশাসক, উপজেলা চেয়ারম্যান, কামারখন্দ থানার ওসি, মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার, কামারখন্দ মাধ্যমিক শিক্ষক সমিতি সম্পাদক বরাবর স্মারকলিপি দিয়েছেন।

ক্ষুব্ধ শিক্ষকরা জানিয়েছেন, আগামী ২৫ এপ্রিলের মধ্যে এই ঘটনার বিচার না হলে স্কুলে পাঠদান থেকে বিরত থাকাসহ বৃহত্তর কর্মসূচির সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে। তবে কারা এমন ঘটনা ঘটিয়েছে তা কেউ বলতে পারছেন না বা বলছেন না।

ঘটনার বিষয়ে উপজেলা নির্বাহী কর্মকতা জানান, ঘটনাটি অবশ্যই ন্যাক্কারজনক। এ ব্যাপারে প্রয়োজনীয় আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।

নিউজওয়ান২৪.কম/এসএম