ঢাকা, ১৮ নভেম্বর, ২০১৯
সর্বশেষ:
জরুরি প্রয়োজনে কল করুন- ৯৯৯ আওয়ামী লীগের জাতীয় সম্মেলন ডিসেম্বরে হেল্পলাইন ১৬২৬৩ এ কল করলেই ডাক্তারের পরামর্শ

এরশাদের এ কেমন অসুখ?

নিজস্ব প্রতিবেদক

প্রকাশিত: ১৫:০৫, ১৮ নভেম্বর ২০১৮  

ফাইল ছবি

ফাইল ছবি

সাবেক রাষ্ট্রপতি ও জাতীয় পার্টির (জাপা) চেয়ারম্যান হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ হঠাৎ করেই গতকাল ঢাকার সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালে ভর্তি হন। এর পর থেকেই শুরু হয়েছে নানা গুঞ্জন। ২০১৪ সালের জাতীয় নির্বাচনের আগেও সামরিক হাসপাতালে ভর্তি হয়েছিলেন তিনি। এবারও প্রশ্ন উঠেছে তার অসুস্থতা কতটা গুরুতর? দেশে যখনই কোনো রাজনৈতিক সংকটের সৃষ্টি হয় কিংবা তিনি কোনো সিদ্ধান্তহীনতায় ভোগেন তখনই এরশাদ হাসপাতালে ভর্তি হন!

রাজনৈতিক মহলের বিভিন্ন জনের ভাষ্য, কোনো অসুখের জন্য তিনি হাসপাতালে ভর্তি হন না। সিদ্ধান্ত নিতে দোটানায় পড়লে সকলকে আড়াল করার জন্য আত্মগোপনের মতো করে হাসপাতালে ভর্তি হন সাবেক এই প্রেসিডেন্ট। বিশেষ করে নির্বাচন আসলেই হাসপাতালে ভর্তি হওয়া এরশাদের ফ্যাশনে পরিণত হয়েছে।

বিশ্বস্ত সূত্র জানিয়েছে, অসুস্থতার কারণে তিনি সেখানে ভর্তি হননি। আসলে গত কয়েকদিন ধরে মহাজোটের মূল দল আওয়ামী লীগের সঙ্গে সংসদের আসন ভাগাভাগি নিয়ে এরশাদের দল জাপার টানাপোড়েন চলছিল। একাদশ নির্বাচনে মহাজোটের কাছে ১০০ আসন দাবি করেছিল জাপা। কিন্তু আওয়ামী লীগ দেখেছে সর্বশেষ জরিপ অনুযায়ী ২৫ থেকে ৩০টির বেশি আসনে জাতীয় পার্টির জয়লাভের সম্ভাবনা নেই। তাই জাপাকে এতগুলো আসন দেওয়ার ব্যাপারে স্পষ্টতই অনাগ্রহ দেখিয়েছে আওয়ামী লীগ। এই বিষয়ে আলোচনা করার জন্য আজকালের মধ্যে বৈঠকে বসার অনুরোধ জানিয়ে আওয়ামী লীগ সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কাছে চিঠি লিখেছিলেন এরশাদ। এরপরই এরশাদ গতকাল হাসপাতালে ভর্তি হলেন।

এ প্রসঙ্গে রাজনৈতিক পর্যবেক্ষকরা বলেন, এরশাদকে মহাজোট থেকে আলাদা করার জন্য একটি মিশন রয়েছে বিএনপির। বিএনপির অনেকেই জাতীয় পার্টির একাধিক নেতার সঙ্গে যোগাযোগ রক্ষা করে চলেছেন। এছাড়া এরশাদ সুযোগসন্ধানী রাজনীতিবিদ হিসেবে পরিচিত। কোনো সুযোগের অপেক্ষায় এরশাদ হাসাপাতালে ভর্তি হয়েছেন কিনা সেটাই এখন দেখার বিষয় বলে মনে করছে দেশের রাজনৈতিক মহল।

তবে এরশাদের অসুস্থতা নিয়ে জাতীয় পার্টির মহাসচিব রুহুল আমিন হাওলাদার জানিয়েছেন, উনি (এরশাদ) রুটিন চেক-আপের জন্য হাসপাতালে গেছেন। উনি নিয়মিতই যান। হাসপাতালের সব বড় বড় কর্মকর্তারা সেখানে উনার দেখাশোনা করছেন। ব্রিগেডিয়ার জেনারেল, মেজর জেনারেল পদমর্যাদার লোকজন।

২০১৪ সালের নির্বাচনের আগেও উনাকে হাসপাতালে ভর্তি হতে হয়েছিল- এ বিষয়ে হেসে দিয়ে তিনি বলেন, দিন তো এক ভাবে যায় না। সবসময় কি একই রকম যায়? সব সময় তো একই রকম যায় না। উনি একটু গেছেন, দু’এক দিন থাকার পর আবার চলে আসবেন।

এরশাদ নিজে ইচ্ছায় নাকি তাকে জোর করে হাসপাতালে নেয়া হয়েছে? - এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, না, না, নেয়া (জোর করে নেয়া) হয়নি।

নিউজওয়ান২৪/এমএস